এলএসডি কী? কিভাবে চিনবেন কেউ এলএসডি আসক্ত কি-না? এর চিকিৎসা কী?

857

পল্লব মুনতাকা : গত ১৫ মে নিহত হওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হাফিজুর রহমানের মৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে এলএসডির সন্ধান পায় ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগ। অভিযান চালিয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন ছাত্রকে গ্রেপ্তার করে তারা। ডিবি জানায়, হাফিজুরকে তার বন্ধুরা এলএসডি সেবন করানোর পর তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রশাসনিক ভবনের সামনে এক ডাব বিক্রেতার দা কেড়ে নিয়ে নিজের গলায় চালিয়ে দেন। এর কয়েক ঘণ্টা তার মৃত্যু হয়। ডিবির এই বক্তব্যের পর এলএসডি নতুন করে আলোচনায় আসে।

এলএসডি কী?

এলএসডি (LSD) -এর পূর্ণ অভিব্যক্তি হচ্ছে- লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইইথ্যালামাইড (Lysergic acid diethylamide)। যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য বিভাগের অধীনস্থ মাদক বিষয়ক গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ড্রাগ অ্যাবিউজের তথ্য অনুযায়ী, ডি-লাইসার্জিক অ্যাসিড ডায়েথিলামাইড বা এলএসডি রাসায়নিক সংশ্লেষণের মাধ্যমে তৈরি একটি পদার্থ যা রাই এবং বিভিন্ন ধরণের শস্যের গায়ে জন্মানো এক বিশেষ ধরনের ছত্রাকের শরীরের লাইসার্জিক অ্যাসিড থেকে তৈরি করা হয়।

এটি স্বচ্ছ, গন্ধহীন একটি পদার্থ। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিনের মতে এটি পাউডার, তরল, ট্যাবলেট বা ক্যাপসুলের আকারে পাওয়া যায়।

এলএসডিকে ‘সাইকাডেলিক’ মাদক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এই ধরনের মাদকের প্রভাবে সাধারণত মানুষ নিজের আশেপাশের বাস্তবতাকে ভিন্নভাবে অনুভব করে এবং কখনো কখনো ‘হ্যালুসিনেট’ বা অলিক বস্তু দেখে থাকে।

উইকিপিডিয়ায় বলা হয়েছে-

লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইইথ্যালামাইড (এলএসডি) (ইংরেজি: Lysergic acid diethylamide) এক ধরনের সাইকেডেলিক ওষুধ যা মনস্তাত্ত্বিক প্রভাবের জন্য পরিচিত।

অনেক ব্যবহারকারীর শ্রবণ বা দর্শন ইন্দ্রিয়ের হ্যালুসিনেশন দেখা দেয়
অনেক ব্যবহারকারীর শ্রবণ বা দর্শন ইন্দ্রিয়ের হ্যালুসিনেশন দেখা দেয়

অনেক ব্যবহারকারীর শ্রবণ বা দর্শন ইন্দ্রিয়ের হ্যালুসিনেশন দেখা দেয়। যার মধ্যে পারিপাশ্বিক পরিবর্তিত সম্পর্কে সচেতনতা, উপলব্ধি, ও সেইসাথে সংবেদন অনুভূত হওয়া, এবং অবাস্তব চিত্রসমূহ বাস্তব মনে হওয়া- প্রভৃতি অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।
এছাড়া ব্যবহারকারীর চক্তচাপ ও শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায়। সাধারণত আধাঘণ্টার মধ্যে প্রভাব শুরু হয়। যা ২০ ঘণ্টা পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।

এটা সাধারণত বিনোদনমূলক ড্রাগ (recreational drug) হিসেবে ও আধ্যাত্মিক কারণে ব্যবহৃত হয়।
এলএসডি সাধারণত জিভের নিচে রাখা হয়। এটি সাধারণত বল্টার কাগজ, চিনির কিউব, বা জেলটিনে বিক্রি করা হয়। এটি ইনজেকশানের সাহায্যেও নেয়া হতে পারে।

বিনোদনমূলক ড্রাগ ওষুধগুলি চিকিত্সার কারণে নয়, উপভোগের জন্য, বা অবসর সময়ে নেওয়া রাসায়নিক পদার্থ। অ্যালকোহল, তামাক এবং ক্যাফিন বিনোদনমূলক ওষুধের তালিকায় স্থান পেতে পারে।

এলএসডি সেবনকারীর কেমন অনুভূতি হয়?

এটি গ্রহণের পর সেবনকারী এক ধরণের কল্পনার জগতে চলে যায়। তবে এ মাদক গ্রহণে দুই ধরণের প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়, একটি হলো সাময়িকের জন্য আনন্দ পাওয়া যায় আবার আরেকটা দিক হলো হ্যালুসিনেশন, যার কারণে গ্রহণকারী কলল্পনার জগতে থাকবে সারাক্ষণ।

আবার এর ফলে ইলিউশন হয় যেটি হ্যালুসিনেশন থেকে আলাদা একটি বিষয়। আপনি যেটি দেখছেন মূল বস্ত্রটি আসলে সেটা নয়। যেমন সামনে একটি রশি পরে আছে কিংবা ঝুলে আছে কিন্তু গ্রহণকারী সেটাকে সাপ ভাবছেন এবং চোখে সাপ দেখছেন।

ফলে এ মাদক গ্রহণে বিভিন্ন রকম খারাপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। এ মাদক গ্রহণে হ্যালুসিনেশন যদি কোনো ব্যক্তির জীবনে দীর্ঘায়িত হয়, তাহলে মারাত্মক আকার ধারণ করবে এবং ব্যক্তি পাগল বা মানসিক রোগী হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

এলএসডি ব্যবহারের প্রতিক্রিয়া
মাদক মস্তিষ্কের ক্রিয়ার ওপর বড় ধরনের প্রভাব ফেলে, তাতে উদ্বেগ, প্যারানয়া কিংবা বিভ্রম ঘটার মতো পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে।

গবেষণায় এলএসডির আসক্তি তৈরির কোনো প্রমাণ মেলেনি। তবে এ মাদক মস্তিষ্কের ক্রিয়ার ওপর বড় ধরনের প্রভাব ফেলে, তাতে উদ্বেগ, প্যারানয়া কিংবা বিভ্রম ঘটার মতো পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)-এর প্যাথলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. জিল্লুর রহমান বলেন, এলএসডি সাধারণত অন্যান্য মাদক থেকে অনেক ক্ষতিকর একটি মাদক। এটি ব্যবহারে এক ধরনের উত্তেজনা তৈরি হয় যেটি তাকে ভিন্ন জগতে নিয়ে যায়। এটি গ্রহণের ফলে ব্যক্তির চোখের সামনে অনেক কিছু ভাসবে তবে সেটির বাস্তবে কোন অস্তিত্ব নেই। যেমন সে ঘরে বসে দেখছে রাস্তা দিয়ে হাঁটছে কিংবা উড়ে যাচ্ছে।

অতিরিক্ত হ্যালুসিনেশনের কারণে এমনকি আত্মহত্যাও করতে পারে। এসব মাদক সাধারণত অল্প বয়সের ছেলে-মেয়েরা গ্রহণ করে থাকে। যেটি সামাজিক প্রেক্ষাপটে ভয়ানক।

এলএসডির উদ্ভব ও বিকাশ

১৯৩৮ সালে প্রথমবার এলএসডি সংশ্লেষণ করা হয়। এরপর ১৯৫০ ও ১৯৬০-এর দশকে নানা ধরনের মানসিক রোগের চিকিৎসায় এলএসডি ব্যবহারের জন্য প্রচারণা চালান গবেষকেরা। সেসময় এই বিষয়ে বহু বৈজ্ঞানিক গবেষণা পরিচালিত হয়, আয়োজিত হয় একাধিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলনও।

এলএসডি তৈরির ফরমুলা

১৯৩৮ সালেই যুক্তরাষ্ট্রে এলএসডিসহ সব ধরনের সাইকাডেলিক ড্রাগ নিষিদ্ধ করে। এরপর ১৯৭১ সালে জাতিসংঘ চিকিৎসা কাজে এলএসডি ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিলে এই বিষয়ে গবেষণায় ভাটা পড়ে।

তবে বিশ্বের নানা দেশে বিষন্নতা, দুশ্চিন্তা, মানসিক অবসাদের মতো অসুস্থতার চিকিৎসায় এলএসডি’র কার্যকারিতা নিয়ে এখনো গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন মনোচিকিৎসক ও রসায়নবিদরা।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিনে ২০১৭ সালে প্রকাশিত এক গবেষণায় উঠে আসে যে, চিকিৎসকের পর্যবেক্ষণে নির্দিষ্ট মাত্রায় এলএসডি গ্রহণের ফলে অসুস্থতার কারণে দুশ্চিন্তায় ভুগতে থাকা রোগীদের দুশ্চিন্তা কমে।

লন্ডন, বাসেল এবং জুরিখ শহরের ৯৫ জন রোগীর ওপর গবেষণাটি পরিচালনা করেন সুইজারল্যান্ডের বাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিসিন বিভাগের গবেষক মাথিয়াস লিখটি।

মাদক হিসেবে এলএসডির প্রচলন

বাংলাদেশে নতুন এ মাদক প্রসঙ্গে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত যুগ্ম কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার জানান- আশির দশকের প্রথম দিকে এই এলএসডি মাদকদ্রব্যটির প্রচলন হয়েছিল। সারা পৃথিবীতে এ মাদকদ্রব্যটি অবৈধ এবং নিষিদ্ধ। এ মাদকটি খুবই ছোট আকারের।

বাংলাদেশে এলএসডির ছদ্মনাম

ডিবি পুলিশ বলছে, বাংলাদেশে এই মাদকগুলোর ছদ্মনাম MDMA, N, M-Dimethyltryptania, psilocybin mushroom-সহ LSD-25, Acid, Delysid ইত্যাদি নামের হয়ে থাকে।
সাধারণত এই মাদকের ভয়াবহতার কারণে এই মাদককে LSD (Last State of Drug) বলা হয়।

যেভাবে বিক্রি করা হয় এলএসডি মাদক

বিভিন্ন দানাদার শস্য থেকে প্রথমে সংগ্রহ করা হয় লাইসারজিক এসিড। সেই এসিড থেকে তৈরি করা হয় ক্রিস্টাল। ক্রিস্টাল গলিয়ে করা হয় তরল। সেই তরল ছোট ছোট ব্লটার পেপারে মাইক্রোগ্রাম অনুপাতে মেশানো হয়।
কার্টুনের ছবি সংবলিত সেই ব্লটার পেপারগুলো কুরিয়ারে আনা হয় দেশে। সাদা চোখে দেখে এটি যে ভয়ংকর মাদক এলএসডি (লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইথ্যালামাইড) সেটা বোঝার উপায় নেই।
দেশে আনার পর সেই ব্লটার পেপারগুলো প্রতি পিস হিসেবে বিক্রি করা হয় মাদকসেবদীদের কাছে। মাদকসেবীরা জিহ্বায় ভিজিয়ে এই এলএসডি মাদক গ্রহণ করে।

এলএসডি-মাদক
এভাবেই প্যাকেটজাত করে বিক্রি করা হয় এলএসডি

এলএসডি কেন ক্ষতির কারণ হতে পারে?

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চিকিৎসার প্রয়োজনে বা গবেষণার কাজে চিকিৎসকের পর্যবেক্ষণে নির্দিষ্ট মাত্রায় এলএসডি গ্রহণ করে থাকে মানুষ। তবে এটি মূলত ব্যবহার হয়ে থাকে মাদক হিসেবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিনের ভাষ্য অনুযায়ী এটি মানুষের মস্তিষ্কের সেরোটোনিন নামক রাসায়নিকের কার্যক্রম প্রভাবিত করে ব্যবহার, অনুভূতি এবং পারিপার্শ্বিকতা সম্পর্কে ধারণা পরিবর্তন করে।

এলএসডি নেয়ার পর সাধারণত মানুষ ‘হ্যালুসিনেট’ করে বা এমন দৃশ্য দেখে যা বাস্তবে নেই। অনেক সময় অলীক দৃশ্য দেখার কারণে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে থাকে মানুষ।

এলএসডি গ্রহণ করে ভুল রাস্তা দেখে দুর্ঘটনার শিকার হওয়া, বাড়ির জানালা দিয়ে লাফিয়ে পড়া বা অহেতুক আতঙ্কিত হয়ে দুর্ঘটনার শিকার হওয়ার বেশ কিছু ঘটনা নথিবদ্ধ রয়েছে।

ইউরোপের বিজ্ঞানী এবং গবেষকদের বাণিজ্যিক ওয়েবসাইট রিসার্চগেইট-এ ২০১৭ সালে প্রকাশিত এক গবেষণার তথ্য অনুযায়ী ১৯৫৩ থেকে ২০০৭ সালের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও কানাডায় মোট ৬৪ জনের মৃত্যু হয় এলএসডি গ্রহণের পরবর্তী জটিলতায়।

বিষন্নতা বা দুশ্চিন্তায় ভোগা ব্যক্তিরা এলএসডি গ্রহণের পর আরো বেশি বিষন্নতা বা দুশ্চিন্তায় আক্রান্ত হতে পারেন বলেও উঠে এসেছে অনেক গবেষণায়।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিন বলছে, এলএসডি গ্রহণের পর অনেকে মনে করেন যে তিনি সবকিছু পরিষ্কার দেখছেন এবং তার শরীরে অতিমানবিক শক্তি এসেছে। এরকম বিভ্রান্তি তৈরি হওয়ার ফলেও অনেকে নানা ধরণের দুর্ঘটনা শিকার হতে পারেন।

অতিরিক্ত আতঙ্কের কারণে মানুষ অনেক সময় মনে করতে পারে যে সে শীঘ্রই মারা যাবে বা মারা যাচ্ছে। এরকম পরিস্থিতিতেও মানুষ আতঙ্কের বশবর্তী হয়ে নানা ধরনের কাজ করে থাকে যার ফলে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

আতঙ্কিত হওয়ার পাশাপাশি অতি দ্রুত অনুভূতির পরিবর্তন হওয়ার কারণেও মানুষ মানসিক ও শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করতে পারে বলে বলছে ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিন।

সংস্থাটি বলছে এলএসডি গ্রহণের আগে এটা বোঝা সম্ভব নয় যে আপনার অভিজ্ঞতা কেমন হতে যাচ্ছে।

এছাড়া এলএসডি মানুষের শরীরে বিভিন্ন রকম প্রভাব ফেলে থাকে। এলএসডি নেয়ার ফলে মানুষের হৃৎস্পন্দন, রক্তচাপ, শ্বাস-প্রশ্বাসের মাত্রা এবং শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায়। এছাড়া অনেকের ক্ষেত্রে অনিদ্রা, ক্ষুধামন্দা, অতিরিক্ত ঘাম সহ নানা ধরণের মানসিক সমস্যাও তৈরি হয় বলে জানাচ্ছে ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিন।

এসব রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিতে হবে
এসব রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিতে হবে

এলএসডি আসক্তদের চিকিৎসা

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সাইকিয়াট্রি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মেখলা সরকার বলেন, এলএসডি মাদক যারা নিচ্ছেন বা যারা এ মাদক গ্রহণে অতিরিক্ত আসক্ত হয়ে যাচ্ছে এদের চিকিৎসা অন্যান্য মাদক সেবনকারীর মতোই।

তবে এলএসডি এমন ভয়ানক মাদক যেটি বেশি মাত্রায় গ্রহণের ফলে হিংস্রতা বেড়ে যায়। অনেক সময় গ্রহণকারীর অতীত মনে পড়ে যায়, কখনো কখনো নিজেকে অতিমাত্রায় শক্তিশালী মনে করে। রাগান্বিত হয় ও শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায় এবং ডিপ্রেশন বেড়ে যায়।

প্রথমত এসব রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিতে হবে। এসময় ধীরে ধীরে মাদক থেকে সরিয়ে আনতে হয় অথবা একেবারে সম্পূর্ণরূপে মাদক থেকে বিমুখ রাখতে হয়। আর সে জন্য আমরা কিছু এন্টিবায়োটিক দিয়ে যাবো যেন শারীরিক কোনো নেতিবাচক প্রভাব না ফেলে।

এ রোগী যদি একসঙ্গে ওষুধ নেয় আবার মাদক নেয়, তাহলে কোনো কাজ হবে না। রোগীর ডাবল ক্ষতি হবে। কারণ ওষুধ নেওয়ার পর তার সাময়িক সময়ের জন্য হ্যালুসিনেশন কিছুটা কমবে কিন্তু আগের মতোই নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

যেভাবে বুঝবেন কেউ এলএসডি আসক্ত কি-না

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যারা মাদক হিসেবে এলএসডি গ্রহণ করেন তারা একক মাদক হিসেবে একে গ্রহণ করেন না। বরং অন্য মাদকের সাথে সাথে এলএসডিও গ্রহণ করে থাকেন। তাই অন্য মাদকদ্রব্যে আসক্তির কারণে যে ধরনের বৈশিষ্ট্য ব্যবহারকারীর মধ্যে দেখা যায় এলএসডির ক্ষেত্রেও বৈশিষ্ট্য অনেকটা একই রকম হয়।
আবার অনেকেই নিয়মিত গ্রহণ না করে বরং মাঝে মাঝে বা কৌতূহলবশত এলএসডি ব্যবহার করে থাকেন। সেক্ষেত্রে তাদের মধ্যে আলাদা করে কোন বৈশিষ্ট্য তৈরি হয় না।

কেউ যদি অন্যান্য মাদকের পাশাপাশি এলএসডি’র আসক্তিতেও ভোগেন তাহলে তার মধ্যে নানা ধরনের বৈশিষ্ট্য থাকতে পারে। সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে-

১. অস্বাভাবিক আচরণ

এলএসডি গ্রহণের পর এর কার্যকারিতা সাধারণত ৩-৪ ঘণ্টা পর্যন্ত থাকে। তবে অনেক সময় এটি ২০ ঘণ্টা পর্যন্তও কার্যকর হতে পারে।
এই সময়ে ব্যবহারকারীরা নানা ধরণের অস্বাভাবিক আচরণ করে থাকে। অনেক সময় মানুষ আত্মঘাতীও হয়ে উঠতে পারে। এ ধরনের বৈশিষ্ট্য যদি পরিবারের কারো মধ্যে দেখা যায় তাহলে সেক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে এবং প্রয়োজন হলে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

এলএসডি ব্যবহারকারী অস্বাভাবিক আচরণ করতে পারে
এলএসডি ব্যবহারকারী অস্বাভাবিক আচরণ করতে পারে

যারা এলএসডি-তে আসক্ত বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাদের মধ্যে আক্রমণাত্মক হয়ে পড়ে। সেক্ষেত্রে খুব ছোট ঘটনায়ও সহিংস হয়ে উঠতে পারেন তারা।

২. ক্ষুধামন্দা
এলএসডিতে আসক্ত হলে তাদের মধ্যে ক্ষুধামন্দা দেখা দেয়।

৩. ঘুমের সমস্যা
ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিন এর তথ্য অনুযায়ী, এলএসডিতে আসক্তদের মধ্যে ঘুম নিয়ে ব্যক্তিভেদে নানা ধরনের সমস্যা তৈরি হয়। অনেকের মধ্যে চরম মাত্রায় অনিদ্রা দেখা দেয়। তবে অনেকের মধ্যে অতিরিক্ত ঘুমের বৈশিষ্ট্যও দেখা দেয়। কোনো কারণ ছাড়াই ঘুমাতে থাকেন অনেকে।
আবার যারা আসক্তিতে ভোগেন তাদের ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, রাতের বেলা তারা না ঘুমিয়ে জেগে থাকেন আবার দিনের বেলা ঘুমিয়ে থাকেন।

৪. শারীরিক পরিবর্তন
এলএসডি-তে আসক্তদের যেসব শারীরিক পরিবর্তন ঘটে তার মধ্যে রয়েছে, চোখের মণিতে পরিবর্তন বিশেষ করে বড় হয়ে যাওয়া, শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি হওয়া, শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত হওয়া, হৃৎস্পন্দন বেড়ে যাওয়ার মতো বৈশিষ্ট্য দেখা যায়।

এছাড়া এলএসডি সেবনের পর অনেক ব্যবহারকারীর শ্রবণ এবং দর্শন ইন্দ্রিয় বেশি সক্রিয় হয়ে যায়। এ কারণে অনেক সময় যারা দীর্ঘক্ষণ ধরে গান করেন তাদের অনেকে এই মাদক গ্রহণ করেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব মেডিসিনের তথ্য মতে, এলএসডি গ্রহণের কারণে দেহে অতিরিক্ত ঘামও হয়ে থাকে।

৫. জীবনযাত্রায় পরিবর্তন
মাদকে আসক্তির ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, ব্যবহারকারীর জীবনযাত্রায় নানা ধরনের পরিবর্তন ঘটেছে। তিনি হয়তো কারো সাথে মিশতে চাইছেন না বা বন্ধু বান্ধবের পরিমাণ কমে যেতে দেখা যায়।

অনেক সময় আবার এর বিপরীতও দেখা যায়। আগের বন্ধুদের সাথে না মিশলেও নতুন করে বন্ধুও তৈরি হতে পারে। আর্থিক চাহিদা আগের তুলনায় বেড়ে যেতে পারে। নিজের প্রতি যত্ন নেয়ার বিষয়ে উদাসীনতা দেখা দেয়া, ক্লাসে ফাঁকি দেয়ার মতো বৈশিষ্ট্য দেখা যেতে পারে।

শেষ কথা
মাদকাসক্তি বিষয়ক গবেষক ও ঢাকার নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. এম ইমদাদুল হক বলেন, অনেক সময় দেখা যায় যে, সন্তানরা বাবা-মা থেকে আলাদা হয়ে পড়ছে বা তারা জীবন যাপনের ক্ষেত্রে ইচ্ছে করেই একাকী হয়ে পড়ছে। সে ক্ষেত্রে এলএসডির মতো আসক্তি ধরাটা কঠিন। সেক্ষেত্রে বাবা-মাকে সন্তানের সাথে দূরত্ব কমিয়ে আনতে হবে।

তিনি মনে করেন, ঘুমের সমস্যা বা খাবারের অরুচি, নতুন বন্ধু তৈরি মানেই কেউ মাদকাসক্ত নয়। সন্তানদের প্রতি যাতে বাবা-মা অযাচিতভাবে সন্দেহের আওতায় নিয়ে না আসে সেদিকেও লক্ষ্য রাখাটা জরুরি। আর এ কারণেই বাবা-মা এবং পরিবারের সদস্যদের সচেতন থাকতে হবে।

এলএসডি ছবি

সূত্র : ১। বিবিসি ২। উইকিপিডিয়া ৩। ইত্তেফাক