Home > জীবনধারা > ৯০ দশকের পর্দা কাঁপানো মিঠুন কিভাবে ইসলামের ছায়াতলে আসলেন..আসুন একটু জেনে নেই…..

৯০ দশকের পর্দা কাঁপানো মিঠুন কিভাবে ইসলামের ছায়াতলে আসলেন..আসুন একটু জেনে নেই…..

mithun

একদিন মাটি হয়ে যেতে হবে তাই এখনই মাটির মতো হও । আল্লামা শেখ সাদির এই উক্তিটি শেখ আবুল কাসেম মিঠুন ভাইয়ের প্রিয় উক্তি । তিনি আজ ইন্তেকাল করেছেন । বেশ কিছুদিন শুনছিলাম তাঁর অসুস্থতার খবর । খুলনায় মায়ের সাথে দেখা করতে গিয়ে অসুস্থতা বেড়ে যাওয়ায় সেখান থেকে ভারতে নেয়া হয়েছিল ।

প্রায় ষাট সত্তরটি বাংলা চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন এই ইসলামপন্থী চলচ্চিত্র নায়ক ।

তার নামের সাথে ইসলাম পন্থি শব্দটা ব্যবহার করা হয় । ৯০ দশকের পর্দা কাঁপানো মিঠুন কিভাবে ইসলামের ছায়াতলে আসলেন । আসুন একটু জেনে নেই ।

(তার সোনালী দিনের কিছু স্মৃতি , বাংলাদেশের নাম করা অভিনেতা/নেত্রিদের সাথে )

বাংলাদেশে ইসলাম নিয়ে কাজ করে এমন একটি সংগঠন তাদের নিয়মিত দাওয়াতি দশক চলছিল সে সেময় । এরশাদ বিরোধী উত্তাল বাংলাদেশের পরবর্তী মুহুর্ত । ঢাকার প্রতিটি ওলি ,গলি, দোকান রেস্তরাকে টার্গেট করে উপমহাদেশের অন্যতম ইসলামী চিন্তাবিদের হাকিকত সিরিজের বই বিলি চলছে ।

ফজরের পরবর্তি সময় । (সম্ভবত) রমনা পার্কের কোন এক গেটে ছিলেন নায়ক মিঠুন তার গাড়িতে । দাওয়াতি দশকের এক দল দায়ী তার গাড়ির জানালা দিয়ে অনুরোধ করলেন একটা বই নিয়ে পড়ার জন্য । প্রথমে না করলেন । দ্বিতীয় বার অনুরোধ ফেলতে পারলেন না । বললেন , “ঠিক আছে রেখে যান সময় হলে পড়ে নিব ”

সেই শুরু । একটা বই তাকে নিয়ে আসলো আলোর কাছে । খুঁজতে লাগলেন হাকিকত সিরিজের অন্যান্য বই গুলো । বই বিলি কারি সেই মানুষ গুলো কেও পেয়ে গেলেন , আস্তে আস্তে তাদের সান্নিধ্য পেয়ে চলচিত্র থেকে নিজেকে গুটিয়ে আনলেন । তার বিশাল বাজার মন্দা হয়ে গেলে । ইনকাম সোর্স অচল হয়ে পড়লো ।

তখন মরহুম কবি “গানের পাখি” মল্লিক ভাই তাকে নিয়ে এলেন “প্রত্যশায়” শুরু হল তার নতুন চলচিত্র ।

নিজেই ছিলেন অনেক চলচ্চিত্রের কাহিনী ও চিত্রনাট্য পরিচালক । কবি মতিউর রহমান মল্লিকের সাথে পরিচয়ের সুবাদে কোরআন হাদিস ও ইসলামী সাহিত্যের ব্যপক অধ্যয়ন করেন । তারপর শুরু করেন নতুন ধারার চলচ্চিত্র ও ইসলামী সংস্কৃতির চর্চা । মল্লিক ভাইয়ের ইন্তেকালের পর তিনিই ছিলেন বংলাদেশ সংস্কৃতি কেন্দ্রের (প্রত্যাশা প্রাঙ্গন ) নির্বাহী পরিচালক .

একটি অনলাইন পত্রিকায় কাজ করার সুবাদে মিঠুন ভাইয়ের কয়েকটি প্রবন্ধ সেখানে প্রকাশ করেছিলাম । ফেসবুকে আমি মাঝেমাঝে যে দুয়েকটি লেখা লিখেছি তিনি তা খুব মনোযোগ দিয়ে পড়তেন । মন্তব্য করতেন এবং এরকম আরও কিছু লেখার জন্য উৎসাহ দিতেন ।

বিপরীত উচ্চারণ সাহিত্য সভায় যাতায়াতের সুবাদে মিঠুন ভাইকে বহুবার দেখেছি , আলোচনা ও বক্তৃতা শুনেছি । বাংলাদেশে ইসলামী ধারার নাটক এবং বিশেষ করে চলচ্চিত্র নির্মাণে তিনি যে সুচনা করে গেছেন তার পরিপূর্ণ বিকাশ একদিন ঘটবেই । আল্লাহ পাক তাঁর সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করে তাঁকে জান্নাতুল ফেরদাউস নসীব করুন

এক সময়য়ের দেশ সেরা নায়ক আবুল কাশেম মিঠুন ভাই , তার জাহেলী জীবনের স্বপ্ন নিয়ে একটি গান লিখেছিলেন । গানটিতে শুর দিয়েছেন জনপ্রিয় ইসলামি কন্ঠশিল্পী মশিউর রহমান । ব্লগার শঙ্খচিল   মেহেদী হাসান