মোহাম্মদ মোখবারের জীবনী : তিনি কি ইরানের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট?

31
মোহাম্মদ মোখবার
ইরানের ভাইস-প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মোখবার । ছবি: প্রেস টিভি

মোহাম্মদ মোখবার। দেশটির প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি দুর্ঘটনায় নিহত হওয়ার পর মোখবারের নামটি বিশ্বজুড়ে আলোচনায় এসেছে। কিন্তু কে এই মোখবার? তিনি ইরানের ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং রাজনৈতিক জগতে একটি প্রভাবশালী নাম। এই প্রবন্ধে আমরা মোখবারের জীবন এবং তার সফলতার পিছনের গল্পগুলি নিয়ে আলোচনা করব। তুলে ধরতে চেষ্টা করবো- ব্যক্তিগত জীবন, শিক্ষা, ক্যারিয়ার এবং রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড।

প্রাথমিক জীবন ও শিক্ষা

মোহাম্মদ মোখবার জন্মগ্রহণ করেন ১৯৫৫ সালে ইরানের খুজেস্তান প্রদেশের দেজফুল শহরে। তিনি একটি ধর্মপরায়ণ ও শিক্ষা-বান্ধব পরিবারে বড় হন। তার পিতা-মাতা তাকে শিক্ষার গুরুত্ব বোঝাতে কখনও কার্পণ্য করেননি। শৈশব থেকেই মোখবার ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী ও পরিশ্রমী ছাত্র। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা সম্পন্ন করার পর, তিনি ইরানের অন্যতম সেরা বিশ্ববিদ্যালয় তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। এখানে তিনি অর্থনীতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

ক্যারিয়ারের সূচনা

মোহাম্মদ মোখবার তার ক্যারিয়ার শুরু করেন ইরানের বিভিন্ন অর্থনৈতিক ও প্রশাসনিক সংস্থায় কাজ করে। তিনি প্রথমে ইরানের রাষ্ট্রীয় উন্নয়ন ব্যাংকে কাজ শুরু করেন এবং দ্রুতই তার দক্ষতা ও পরিশ্রমের জন্য পদোন্নতি পান। এর ফলে তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক প্রকল্পে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পান, যা তার দক্ষতাকে আরও পরিপক্ক করে তোলে।

রাজনীতিতে পদার্পণ

মোহাম্মদ মোখবারের রাজনীতিতে আগ্রহ ছিল শৈশব থেকেই। তার বাবা-মা রাজনীতি নিয়ে আলোচনা করতেন এবং মোখবারের মধ্যে একটি রাজনৈতিক চেতনা গড়ে উঠেছিল। ১৯৮০-এর দশকে ইরানের ইসলামী বিপ্লবের পর, মোখবার সক্রিয়ভাবে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত হন। তার দক্ষতা ও নেতৃত্বের গুণাবলি তাকে তেহরানের রাজনৈতিক মহলে পরিচিত করে তোলে।

সেতাদের ফাউন্ডেশন

মোহাম্মদ মোখবার ইরানের সেতাদের ফাউন্ডেশনের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এই ফাউন্ডেশনটি ইরানের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। মোখবারের নেতৃত্বে ফাউন্ডেশনটি বিভিন্ন সফল প্রকল্প সম্পন্ন করেছে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল অবকাঠামোগত উন্নয়ন, স্বাস্থ্যসেবা এবং শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ।

সেতাদের ফাউন্ডেশন, যা ইরানে “সেতাদ এজরা-ই ফারমান-ই ইমাম” বা “সেটাদ” নামে পরিচিত, একটি শক্তিশালী এবং প্রভাবশালী প্রতিষ্ঠান। এটি ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতোল্লাহ আলি খামেনেয়ীর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। এই ফাউন্ডেশনটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল মূলত ইরানের ইসলামী বিপ্লবের পর রাজস্ব ও সম্পদ ব্যবস্থাপনা এবং সামগ্রিক উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনার উদ্দেশ্যে। সেতাদের ফাউন্ডেশন বর্তমানে ইরানের অর্থনৈতিক, সামাজিক, এবং মানবিক কার্যক্রমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

সেতাদের ফাউন্ডেশনের ইতিহাস ও প্রতিষ্ঠা

সেতাদের ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৮৯ সালে, ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতোল্লাহ খোমেনির মৃত্যুর পর। আয়াতোল্লাহ খোমেনির নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতিষ্ঠিত এই সংস্থা প্রথমে ফিলিস্তিন ও অন্যান্য মুসলিম দেশগুলির মানুষের জন্য সম্পত্তি ও অর্থ সংগ্রহের উদ্দেশ্যে গঠিত হয়েছিল। তবে, সময়ের সাথে সাথে সংস্থাটি ইরানের অভ্যন্তরীণ অর্থনৈতিক এবং সামাজিক উন্নয়নমূলক কার্যক্রমেও ভূমিকা রাখতে শুরু করে।

সংস্থার কার্যক্রম ও প্রভাব

অর্থনৈতিক কার্যক্রম: সেতাদের ফাউন্ডেশন ইরানের অন্যতম বৃহত্তম অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান। এটি বিভিন্ন শিল্প, কৃষি, স্বাস্থ্যসেবা, এবং বাণিজ্য ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করে। ফাউন্ডেশনটি ইরানের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার চেষ্টা করে।

সম্পত্তি এবং সম্পদ ব্যবস্থাপনা: সেতাদের ফাউন্ডেশন ইরানের বিপ্লবের পর অবৈধভাবে দখলকৃত সম্পত্তি এবং নির্জন ও বেওয়ারিশ সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা করে। এই সম্পত্তিগুলি থেকে প্রাপ্ত আয় ইরানের অর্থনীতির উন্নয়নে ব্যবহার করা হয়।

সামাজিক উন্নয়ন: ফাউন্ডেশনটি সামাজিক উন্নয়নমূলক কার্যক্রমেও সক্রিয়। এটি স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, এবং দাতব্য কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে। ইরানের দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য বিভিন্ন সাহায্য কার্যক্রম পরিচালনা করে।

মানবিক কার্যক্রম: সেতাদের ফাউন্ডেশন আন্তর্জাতিক মানবিক কার্যক্রমেও অংশগ্রহণ করে। এটি ফিলিস্তিন, ইয়েমেন এবং অন্যান্য যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশগুলির মানুষের জন্য সহায়তা প্রদান করে।

 সংস্থার নেতৃত্ব ও প্রশাসন

সেতাদের ফাউন্ডেশনের নেতৃত্ব এবং প্রশাসন সরাসরি ইরানের সর্বোচ্চ নেতার তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। মোহাম্মদ মোখবার, যিনি বর্তমানে ইরানের ভাইস প্রেসিডেন্ট, এই ফাউন্ডেশনের প্রধান হিসেবে কাজ করেছেন। তার নেতৃত্বে ফাউন্ডেশনটি বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল প্রকল্প সম্পন্ন করেছে এবং ইরানের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

ইব্রাহিম রাইসি
ইব্রাহিম রাইসিকে বলা হতো ‘জনতার প্রেসিডেন্ট’

ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নিযুক্তি

২০২১ সালে, ইরানের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি মোহাম্মদ মোখবারকে ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিযুক্ত করেন। মোখবারের এই পদে নিযুক্তি ইরানের রাজনৈতিক মহলে একটি বড় ধরনের পরিবর্তন হিসেবে দেখা হয়। তিনি এই পদে দায়িত্ব গ্রহণ করার পর থেকে বিভিন্ন অর্থনৈতিক ও প্রশাসনিক সংস্কার কার্যক্রম শুরু করেন, যা ইরানের সাধারণ জনগণের মধ্যে প্রশংসিত হয়।

প্রশাসনিক দক্ষতা ও নেতৃত্ব

মোহাম্মদ মোখবারের প্রশাসনিক দক্ষতা ও নেতৃত্বগুণ ইরানের বিভিন্ন স্তরে প্রশংসিত হয়েছে। তিনি সবসময় একটি সুষ্ঠু এবং স্বচ্ছ প্রশাসনিক ব্যবস্থার পক্ষে ছিলেন। তার নেতৃত্বে ইরানের অর্থনৈতিক উন্নয়ন আরও গতিশীল হয়েছে এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নত হয়েছে।

সমাজসেবা ও মানবিক কার্যক্রম

মোহাম্মদ মোখবার শুধু রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক ক্ষেত্রেই নয়, সমাজসেবা ও মানবিক কার্যক্রমেও সক্রিয়ভাবে জড়িত। তিনি বিভিন্ন দাতব্য সংস্থা ও এনজিও-এর সাথে কাজ করে ইরানের দরিদ্র ও অবহেলিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তার এই কার্যক্রম ইরানের জনগণের মধ্যে তাকে আরও জনপ্রিয় করে তুলেছে।

ভবিষ্যতের লক্ষ্য ও পরিকল্পনা

মোহাম্মদ মোখবারের ভবিষ্যতের লক্ষ্য হল ইরানকে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা। তিনি তার প্রশাসনিক দক্ষতা এবং নেতৃত্বগুণ দিয়ে ইরানের জনগণের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করে চলেছেন। তার পরিকল্পনাগুলির মধ্যে রয়েছে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা অর্জন, বেকারত্ব হ্রাস, এবং শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন।

মোহাম্মদ মোখবারের প্রেসিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা

ইব্রাহিম রাইসির অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর পর মোহাম্মদ মোখবারের ইরানের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার নাম উচ্চারিত হচ্ছে। তার প্রেসিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে বিভিন্ন বিশ্লেষকেরা বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেছেন। তার প্রশাসনিক দক্ষতা, রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা এবং বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে থাকা অবস্থায় তার কার্যকলাপ এই সম্ভাবনার পক্ষে ও বিপক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করে। এখানে বিশ্লেষকদের মতামত এবং মোখবারের সম্ভাবনার পেছনের কারণগুলো বিশদভাবে তুলে ধরা হলো:

 মোখবারের শক্তি এবং সম্ভাবনা

অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতা: মোহাম্মদ মোখবারের প্রশাসনিক ও অর্থনৈতিক দক্ষতা তার প্রেসিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। তিনি সেতাদের ফাউন্ডেশন পরিচালনার মাধ্যমে নিজেকে একজন দক্ষ প্রশাসক হিসেবে প্রমাণ করেছেন। তার এই অভিজ্ঞতা তাকে ইরানের প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী হিসেবে একটি শক্তিশালী অবস্থান প্রদান করতে পারে।

রাজনৈতিক সংযোগ: মোখবারের রাজনৈতিক সংযোগ এবং তার দলের অভ্যন্তরে তার জনপ্রিয়তা একটি গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। তিনি ইরানের সুপ্রিম লিডার আয়াতোল্লাহ খামেনেয়ীর ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসেবে পরিচিত, যা তাকে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে একটি শক্তিশালী ভিত্তি প্রদান করে।

জনপ্রিয়তা: মোখবারের বিভিন্ন সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নমূলক কাজ তাকে সাধারণ জনগণের মধ্যে জনপ্রিয় করে তুলেছে। তার নেতৃত্বে বিভিন্ন প্রকল্প সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ার ফলে তিনি জনগণের আস্থা অর্জন করেছেন, যা তার প্রেসিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ায়।

চ্যালেঞ্জ এবং সীমাবদ্ধতা

রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী: ইরানের রাজনৈতিক মঞ্চে মোখবারের প্রচুর প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছে। প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে তাকে শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বীদের মোকাবিলা করতে হবে, যা তার জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ হতে পারে।

বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট: ইরানের বর্তমান রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি, বিশেষ করে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও নিষেধাজ্ঞার প্রভাব, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে একটি বড় ভূমিকা পালন করবে। মোখবারকে এই পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নিতে এবং দেশের উন্নয়নের জন্য কার্যকর পরিকল্পনা উপস্থাপন করতে হবে।

ভবিষ্যতের পরিকল্পনা: মোখবারের ভবিষ্যতের পরিকল্পনা এবং তার নেতৃত্বের ভিশনও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তিনি যদি জনগণের প্রত্যাশা অনুযায়ী একটি সুস্পষ্ট এবং কার্যকর উন্নয়ন পরিকল্পনা উপস্থাপন করতে পারেন, তবে তার প্রেসিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পেতে পারে।

মোহাম্মদ মোখবার একজন মেধাবী ও প্রতিশ্রুতিশীল নেতা, যিনি ইরানের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। তার শিক্ষা, ক্যারিয়ার, এবং রাজনৈতিক জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করলে বোঝা যায়, তিনি একজন নিরলস পরিশ্রমী এবং দক্ষ নেতা। তার নেতৃত্বে ইরান একটি উজ্জ্বল ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, এবং তার সাফল্য দেশের উন্নয়নে নতুন মাত্রা যোগ করছে। তাই মোহাম্মদ মোখবারের ইরানের প্রেসিডেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা একেবারে অমূলক নয়। তার প্রশাসনিক দক্ষতা, রাজনৈতিক সংযোগ, এবং জনপ্রিয়তা তাকে একটি শক্তিশালী প্রার্থী হিসেবে তৈরি করেছে। তবে, তাকে অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে এবং দেশের বর্তমান পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নিতে হবে।