Home > খেলা > চ্যাম্পিয়নস ট্রফি নিশ্চিত বাংলাদেশের

চ্যাম্পিয়নস ট্রফি নিশ্চিত বাংলাদেশের

চ্যাম্পিয়নস ট্রফি নিয়ে বাংলাদেশের অনিশ্চয়তার দোলাচল শেষ হলো তাহলে! ক্রিকইনফো সম্পাদক সম্বিত বালের কথা সত্যি ধরে নিলে তাই। কাল টুইটারে তিনি জানিয়েছেন, বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ কিংবা ওয়েস্ট ইন্ডিজ-পাকিস্তান-জিম্বাবুয়েকে নিয়ে অনুষ্ঠেয় ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের ম্যাচগুলোর ফল যা-ই হোক না কেন, ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ নিশ্চিত। ৩০ সেপ্টেম্বরের আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের সেরা আটে থাকার বিষয়ে তাঁকে নাকি জানানো হয়েছে খোদ আইসিসি থেকেই।

ভারতের বিপক্ষে সিরিজ শুরুর আগে বাংলাদেশের সামনে হিসাবটা ছিল পরিষ্কার। ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ছয় ম্যাচের মধ্যে দুটিতে জিততে পারলেই হয়। তাহলেই ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে খেলা নিশ্চিত। ভারতের বিপক্ষে প্রথম দুই ম্যাচ জিতেই তাই চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে খেলার আনন্দে ভাসে বাংলাদেশ। সিরিজের শেষ ম্যাচ হারলেও ৯৩ রেটিং নিয়ে র‌্যাঙ্কিংয়ের সাত নম্বরে উঠে আসে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। ৮৮ রেটিংয়ের ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ৮৭ রেটিংয়ের পাকিস্তানের মধ্যে দুই দলেরই সুযোগ থাকে না ৩০ সেপ্টেম্বরের আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশকে আটের বাইরে ছিটকে ফেলার।

কিন্তু পাকিস্তান-ওয়েস্ট ইন্ডিজ-জিম্বাবুয়ের ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্ট খেলার পরিকল্পনায় আবার একটু অনিশ্চয়তায় পড়ে যায় মাশরাফির দল। কারণ ওই টুর্নামেন্টে রেটিং পয়েন্ট বাড়িয়ে বাংলাদেশকে পেরিয়ে যাওয়ার সুযোগ পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছিল। যে কারণে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের গুরুত্ব বাংলাদেশের জন্য বেড়ে যায় অনেক। পাকিস্তান-ভারতের মতো প্রোটিয়াদের বিপক্ষে যদি সিরিজ জিততে পারে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল, তাহলে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি খেলা নিয়ে সংশয় থাকত না বিন্দুমাত্র।

এ হিসাব মাথায় রেখেই প্রোটিয়াদের বিপক্ষে সিরিজের প্রস্তুতি শুরু করে বাংলাদেশ। তবে সম্বিত বালের কালকের টুইট বার্তা সত্যি হলে এখন কিছুটা চাপমুক্ত হয়ে মাঠে নামতে পারবে তারা। দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে সিরিজের তিন ওয়ানডেই যদি হারে বাংলাদেশ আর ওদিকে ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ রেটিং পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তান- তবু মাশরাফির দলের নাকি ভয়ের কিছু নেই। ৩০ সেপ্টেম্বরের আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে আটের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই বাংলাদেশের। ফলে ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় চ্যাম্পিয়নস ট্রফি খেলছেই বাংলাদেশ। এখন আইসিসি থেকে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসাটাই বাকি কেবল!

সূত্রঃ কালেরকন্ঠ