Home > বাছাইকৃত > রাজশাহীর মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বরখাস্ত

রাজশাহীর মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল বরখাস্ত

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে সরকার। আজ বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ এক প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে তাঁকে বরখাস্ত করে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, স্থানীয় সরকার আইন ২০০৯ এর ধারা ১২ উপধারা ১-এর প্রদত্ত ক্ষমতাবলে মোসাদ্দেককে সাময়িভাবে বরখাস্ত করা হয়।

মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের বিরুদ্ধে দায়ের করা চারটি মামলায় আদালত অভিযোগপত্র গ্রহণ করায় এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়।

বরখাস্ত চেয়ে আরএমপির চিঠি

এর আগে মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের সাময়িক বরখাস্ত চেয়ে পুলিশ সদর দপ্তরে চিঠি পাঠায় রাজশাহী মহানগর পুলিশ (আরএমপি)। গত ২৩ জানুয়ারি পুলিশ সদর দপ্তরে এ-সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হয়। পুলিশ সদর দপ্তর থেকে তা আবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিবের কাছে পাঠানো হয়।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি আরএমপি কমিশনার মো. শামসুদ্দিন জানান, চিঠিতে রাসিক মেয়র ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের নামে পুলিশ কনস্টেবল সিদ্ধার্থ সরকার হত্যাসহ বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা পাঁচটি মামলার কথা উল্লেখ রয়েছে। সেই সঙ্গে মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল মেয়র পদে থাকলে মামলাগুলো ভিন্ন খাতে প্রবাহিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া মেয়র বুলবুল রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডে মদদ ও নির্দেশনা দিয়ে আসছেন বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। এজন্য তাঁকে রাসিক মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে।

২০১৩ সালের ১৫ জুন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে বিএনপি নেতা মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এক লাখ ৩১ হাজার ৫৮ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। নির্বাচনে সাবেক মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন ৮৩ হাজার ৭২৬ ভোট পেয়ে পরাজিত হন।

মেয়রের বিরুদ্ধে ১৭ মামলা

গত বছর ৫ জানুয়ারির পর মোট ১৭টি মামলা হয়েছে মেয়র বুলবুলের বিরুদ্ধে। ২০১৩ সালের ২৬ ডিসেম্বর নগরীর রাজারহাতা এলাকায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা পুলিশের গাড়িতে বোমা হামলার ঘটনায় কনস্টেবল সিদ্ধার্থ সরকার নিহত হন। এ ঘটনায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা দুটি মামলার আসামিও বুলবুল। এ ছাড়া বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের টানা অবরোধ-হরতালের মধ্যে গত ১৯ জানুয়ারি গভীর রাতে নগরের ভদ্রা এলাকায় বাসে পেট্রলবোমা হামলা, গত ২২ জানুয়ারি দুপুরে নগর ভবনের সামনে গাড়িবহরে পেট্রল ও হাতবোমা হামলা এবং ২৫ জানুয়ারি গভীর রাতে কাপাশিয়ায় বাসে পেট্রল ও হাতবোমা হামলার ঘটনার মামলায় তাঁকে হুকুমের আসামি করা হয়েছে।