Home > বাছাইকৃত > আ.লীগের অবদান ভুলে গেলে চলবে না

আ.লীগের অবদান ভুলে গেলে চলবে না

প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারই দেশের ছাত্রছাত্রীর হাতে ৩৩ কোটি বই বিনামূল্যে বিতরণ শুরু করে। আজ থেকে বর্তমান সরকার ছাত্রছাত্রীদের বিনামূল্যে ল্যাপটপ বিতরণ শুরু করল। আওয়ামী লীগের এ অবদান ভুলে গেলে চলবে না।’

রোববার অগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল মিলনায়তনে ‘ওয়ান স্টুডেন্ট ওয়ান ল্যাপটপ’ প্রকল্পের আওতায় এক্সিম ব্যাংকের সহায়তায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে ল্যাপটপ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এক্সিম ব্যাংকের সহযোগিতায় ‘ওয়ান স্টুডেন্ট ওয়ান ল্যাপটপ’ প্রকল্পের প্রথম ধাপে ৫০০ ল্যাপটপ বিতরণ করা হবে।

এর অংশ হিসাবে এ অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যায় এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আড়াইশ শিক্ষার্থীকে ল্যাপটপ দেয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে জয় বলেন, “এটা কেবল আরম্ভ। পাঁচশ ল্যাপটপ দিয়ে আমরা কেবল শুরু করছি।

তিনি বলেন, ‘আমরা ছয় বছর আগে যখন ডিজিটাল বাংলাদেশের পরিকল্পনা করি তখন অনেকে বলেছিল যারা গরীব মানুষ তারা কীভাবে কম্পিউটার-ইন্টারনেট পাবে। তাদের আমি বলেছিলাম তাদের এগুলো পেতে হবে না। আমি তাদের পৌঁছে দেবো। তারই ধারবাহিকতা এ প্রকল্পটি। এটা শেষ নয়। শুধুই আরম্ভ হলো।’

এ সময় তিনি প্রত্যেকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ফ্রি ওয়াইফাই জোন করে দেয়ার ঘোষণা দিয়ে বলেন, ‘দেশের ১১৮ টি বিশ্ববিদ্যালয়কে শিগগিরই ফাইবার অপটিক নেটওয়ার্কের আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে। যেখানে সংযোগ থাকবে এক এমবিপিএস। এছাড়া গড়ে তোলা হবে একটি আইটি ইন্ডাস্ট্রি, আইটির ওপর দক্ষ জনশক্তি।’

জয় বলেন, ‘আমি আশা করি, আজ যারা বিনামূল্যে ল্যাপটপ পাচ্ছে তাদের ভেতর থেকেই কেউ না কেউ ভবিষ্যতে ফেইসবুক, গুলল তৈরি করবে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের তিনি আওয়ামী লীগ সরকারের এ ধরনের অবদানের কথা ভুলে গেলে চলবে না বলে উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল যোদ্ধা হিসেবে তৈরি হওয়ার আহ্বান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান দেশে যত গরীব মেধাবী শিক্ষার্থী রয়েছে তাদের সকলের জন্য ল্যাপটপের ব্যবস্থা করার ঘোষণা দেন। সামাজিত দায়বদ্ধতা খাত থেকে এটা করা হবে।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আইসিটি বিভাগের সচিব শ্যামসুন্দর শিক্দার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, বুয়েটের উপাচার্য খলেদা একরাম, শাহজালাল প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস, বিটিআরসির চেয়ারম্যান সুনিল কান্তি, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব ফাইজুর রহমান সহ আরো অনেকে।