Home > বিনোদন > পুলিশের সহায়তায় প্রেমের সফল পরিনতি

পুলিশের সহায়তায় প্রেমের সফল পরিনতি

পরিবারের বাধা সত্ত্বেও বিমানবন্দরে হতদরিদ্র প্রেমিককে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রবাসী বাংলাদেশি হালিমা নাসরিন। দরিদ্র যুবক সাদ্দাম হোসেনকে বিয়ে করার জন্য সুদূর আমেরিকা থেকে আসেন তিনি। কিন্তু বিমানবন্দরে নামার পর নাসরিনের পরিবার বিরোধিতা করায় বিপাকে পড়েন পুলিশ কর্মকর্তারা। অবশেষে পুলিশই প্রেমিকের হাতে তুলে দেয় প্রেমিকাকে।

জানা যায়, মোবাইল ফোনে ভুল নম্বরে যোগাযোগের মাধ্যমে সিলেটের সম্ভ্রান্ত পরিবারের তরুণী হালিমা নাসরিন ও সিরাজগঞ্জের দরিদ্র পরিবারের যুবক সাদ্দাম হোসেনের পরিচয় হয়। ফোনে কথা বলতে বলতে একপর্যায়ে তাঁদের মধ্যে গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক। সিলেটে থাকাকালে পরিচয় হলেও তিন বছর আগে নার্সিং বিষয়ে উচ্চতর প্রশিক্ষণ নিতে আমেরিকায় যান নাসরিন। তবু থামেনি দুজনের প্রেমের সম্পর্ক। দুজনের সম্পর্ক নাসরিনের পরিবার জেনে গেলে বাদ সাধে তারা। কিন্তু সাদ্দামকে পেতে নাসরিন ব্যাকুল হয়ে ওঠেন। একপর্যায়ে তিনি সাদ্দামকে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন। দীর্ঘ তিন বছর পর আমেরিকা থেকে এমিরেটস এয়ারলাইনসের একটি বিমানে করে গতকাল সকালে শাহজালাল বিমানবন্দরে নামেন নাসরিন। তাঁকে রিসিভ করতে বিমানবন্দরে আসেন প্রেমিক সাদ্দাম হোসেন। তা ছাড়া নাসরিনের পরিবারও টের পেয়ে সিলেট থেকে বিমানবন্দরে ছুটে আসে।

এপিবিএনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন জানান, নাসরিনকে নিতে তার পরিবার পীড়াপীড়ি করলে নাসরিন যেতে রাজি হননি। সাফ জানিয়ে দেন তিনি সাদ্দাম হোসেনের সঙ্গেই যাবেন। এ অবস্থায় তাঁর পরিবার পুলিশের সহায়তা চায়। পরে নাসরিনকে এপিবিএনের কার্যালয়ে নিয়ে যান আলমগীর হোসেন। পরে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের পরামর্শে নাসরিনকে সাদ্দামের কাছে দেওয়া হয়।’

সাদ্দাম হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রায় তিন বছর ধরে আমরা একে অন্যকে ভালোবাসি। আমরা দুজন আজ (গতকাল) বিয়ে করব। আমার গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জে বিয়ের আয়োজন চলছে।’ নাসরিন বলেন, ‘আমি ভালোবাসার টানে দেশে এসেছি। সাদ্দামের সঙ্গে যেতে দেওয়ার জন্য আমি আর্মড পুলিশকে ধন্যবাদ।’