Home > দেশজুড়ে > ঢাকার বাইরে > ছাত্রীদের টয়লেটে ছাত্রলীগ নেতার বিশ্রামাগার!

ছাত্রীদের টয়লেটে ছাত্রলীগ নেতার বিশ্রামাগার!

রিশালে সরকারি বিএম কলেজের রসায়ন বিভাগে ছাত্রীদের একমাত্র টয়লেটটি দখল করে সেখানে ‘বিশ্রামাগার’ তৈরি করেছেন ছাত্রলীগ নেতা নুরুল আম্বিয়া বাবু। তাঁর ও তাঁর লোকদের নিয়ে বিশ্রামের সময় টয়লেটটি ভেতর থেকে খিল দেওয়া এবং বাকি সময় বাইরে তালাবদ্ধ থাকে। ফলে বিভাগের প্রায় ১২ শ ছাত্রী টয়লেট ব্যবহার করতে পারছেন না। তালাবদ্ধ টয়লেটটি পরিদর্শন করলেও এ ব্যাপারে বিভাগীয় প্রধান কিংবা কলেজ অধ্যক্ষ তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে সক্ষম হননি।

বিএম কলেজের রসায়ন বিভাগের নিচ তলায় রয়েছে এ বিভাগের ছাত্রীদের জন্য একমাত্র টয়লেট। বিভাগের ১২ শ ছাত্রী এ টয়লেট ব্যবহার করেন। টয়লেটের দুটি অংশ রয়েছে। এর প্রথম অংশে একটি খালি জায়গা এবং সেটি পার হয়ে যেতে হয় মূল টয়লেটে। এই খালি জায়গাটি বন্ধ থাকলে টয়লেটের ভেতর যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। টয়লেটে বেশি ভিড় থাকলে ছাত্রীরা সেখানে অবস্থান নিয়ে থাকেন। কলেজ ছাত্রলীগ নেতা বাবু সেই খালি জায়গাটি দখল করে নিয়েছেন। নুরুল আম্বিয়া বাবু কলেজ ছাত্রলীগ কিমিটির সদস্য। গত শুক্রবার রাতে তিনি টয়লেটের প্রবেশদ্বারে একটি তালা ঝুলিয়ে দেন। গত শনিবার কলেজ খুললে কোনো ছাত্রী টয়লেটে প্রবেশ করতে পারেননি। ছাত্রীরা টয়লেটের প্রবেশদ্বারে তালা ঝুলিয়ে দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে বাবু সাফ জানিয়ে দেন, এটা এখন থেকে তাঁর বিশ্রামের জন্য ব্যবহার করা হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে রসায়ন বিভাগের এক শিক্ষক বলেন, ‘শুক্রবার হঠাৎ করেই নুরুল আম্বিয়া বাবু রসায়ন বিভাগের ছাত্রীদের টয়লেটটিতে তালা ঝুলিয়ে দেন। এরপর শনিবার সন্ধ্যায় এসে তিনি ওই কক্ষে অবস্থান করেন। কক্ষের ফ্লোরে একটি চটি বিছিয়ে সেখানে তিনি তাঁর সহযোগীদের নিয়ে ধূমপান করেন। এরপর ফের কক্ষটি তালাবদ্ধ করে চলে চান। ছাত্রীদের একমাত্র টয়লেটটিতে বাবু তালা ঝুলিয়ে দেওয়ায় ছাত্রীরা অস্বস্তিতে পড়েছেন।’

রসায়ন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী রোখসানা আক্তার বলেন, বৃহস্পতিবার তাঁরা রসায়ন বিভাগের টয়লেটটি ব্যবহার করেছেন। কিন্তু শনিবার এসে দেখেন তালাবদ্ধ। বিভাগীয় প্রধানকে বিষয়টি অবহিত করা হলে তিনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন। তাঁদের বিভাগে ছাত্রীদের জন্য একটিমাত্র টয়লেট। কিন্তু তালা মারার কারণে তাঁদের পক্ষে আর টয়লেটে প্রবেশ করা সম্ভব হচ্ছে না।

এ ব্যাপারে কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য নুরুল আম্বিয়া বাবু বলেন, তিনি ‘বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা’র বিএম কলেজ শাখার আহ্বায়ক। আর ওই কক্ষটি বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য নেওয়া হয়েছে। বিষয়টি কলেজ প্রশাসনকে জানানো হবে বলে তিনি জানান। তবে কার্যালয় হিসেবে ছাত্রীদের টয়লেট বেছে নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি এর কোনো জবাব দেননি।

কলেজের রসায়ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক দেলওয়ার হোসেন বলেন, ‘বিভাগে ছাত্রীদের জন্য একটিমাত্র টয়লেট। ওই টয়লেটের প্রধান ফটকে ছাত্রলীগ নেতা নুরুল আম্বিয়া বাবু একটি তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। এ কারণে ছাত্রীরা টয়লেট ব্যবহার করতে পারছে না। বিষয়টি অধ্যক্ষকে জানিয়েছি। তিনি এসে পরিদর্শন করে গেছেন। শিগগিরই ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানিয়েছেন।’

কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফজলুল হক বলেন, ‘নুরুল আম্বিয়া বাবু কাউকে না জানিয়ে রসায়ন বিভাগের ছাত্রীদের টয়লেটের প্রবেশদ্বারে তালা মেরেছে। তাকে ছাত্রীদের টয়লেটের প্রবেশদ্বারের তালা খুলে দিতে বলা হয়েছে। যদি সে না খুলে দেয় তবে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’