বিদেশে বাড়ী তৈরি করছেন আওয়ামী লীগের ২৮৭ নেতা!

বিদেশে সেকেন্ড হোম নিয়েছেন এমন ৬৪৮ ব্যক্তির বিষয়ে তদন্ত করছে বাংলাদেশের দুই সংস্থা। ইতিমধ্যে অনুসন্ধান শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এক উপ-পরিচালকের নেতৃত্বে দুদকের তিন সদস্যের বিশেষ টিম প্রাথমিক অনুসন্ধান চালাচ্ছে। যোগাযোগ করা হচ্ছে মালয়েশিয়া সরকারের সঙ্গেও। পাশাপাশি একই তালিকা ধরে তদন্ত চালাচ্ছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। এ তালিকাভুক্তদের মধ্যে রাজনীতিক আছেন ৩৮৩ জন এবং সাবেক সরকারি কর্মকর্তা, শিক্ষকসহ বিভিন্ন পেশাজীবী আর ব্যবসায়ী ২৬৫ জন।

তালিকায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি-জামায়াতের নেতাদের সংখ্যাও আলাদা করা হয়েছে। সে হিসেবে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীর মধ্যে ২৮৭ এবং বিএনপি-জামায়াত সংশ্লিষ্ট ৯৬ জন বাংলাদেশের বাইরে সেকেন্ড হোম রেখেছেন। জানা যায়, মালয়েশিয়া সরকারের দেওয়া তথ্যানুসারে গত এক যুগে সেখানে সেকেন্ড হোম সুবিধা নিয়েছেন ৩ হাজার ৫ জন বাংলাদেশি। তাদের প্রত্যেককে মালয়েশিয়ায় ১০ বছরের জন্য নন-মালয়েশিয়ান হিসেবে ভিসা নিতে কমপক্ষে প্রায় ১ কোটি টাকা করে মালয়েশিয়ার ব্যাংকে জমা রাখা ও আনুষঙ্গিক ব্যয় করতে হয়েছে। সে হিসেবে শুধু মালয়েশিয়ায় পাচার হয়েছে প্রায় ৩ হাজার ৫ কোটি টাকা। কিন্তু বাংলাদেশ থেকে দ্বিতীয় কোনো দেশে বিনিয়োগ বা অন্য কোনো কারণে এত টাকা নিয়ে যাওয়ার কোনো আইনি সুযোগই নেই। তাই পুরোটাই গিয়েছে অবৈধ হুন্ডি বা অন্য অবৈধ উপায়ে। সেকেন্ড হোম গড়তে আগ্রহীদের কাছে মালয়েশিয়া ছাড়া আরেকটি জনপ্রিয় গন্তব্য কানাডা। সিঙ্গাপুর, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্রও আছে তালিকায়। জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, বেলজিয়ামে অনেক রাজনীতিকের ব্যবসা-বাণিজ্য রয়েছে। কেউ কেউ সেসব দেশের নাগরিক। রয়েছে অল্টারনেটিভ পাসপোর্ট। এভাবে বিপুল অর্থ-সম্পদ গড়ে তুলেছেন অনেকেই।

মালয়েশিয়ার সেকেন্ড হোম প্রজেক্টের (এমএমটুএইচ) ২০১৪ সালের মাসভিত্তিক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, জানুয়ারিতে আবেদন করেছেন ২, ফেব্রুয়ারিতে ২৬, মার্চে ৩৫, এপ্রিলে ২০, মে-তে ২৯, জুনে ৯, জুলাইয়ে ৯, আগস্টে ৯, সেপ্টেম্বরে ৩৫, অক্টোবরে ১৪, নভেম্বরে ২১, ডিসেম্বরে ৪১ জন। সর্বশেষ প্রকাশিত তালিকায় বাংলাদেশ হচ্ছে শীর্ষ দেশগুলোর মধ্যে তৃতীয়। শীর্ষে চীন, দ্বিতীয় জাপান। এরপর কোরিয়া, যুক্তরাজ্য, আয়ারল্যান্ড ও সিঙ্গাপুরের অবস্থান। ২০১৪ সালের শীর্ষ ১০ তালিকায় ভারত নেই। তালিকা অনুসারে জানা যায়, মালয়েশিয়ার সেকেন্ড হোম প্রজেক্ট প্রথম চালু হয় ২০০২ সালে। প্রথমবার কোনো বাংলাদেশি সেখানে আবেদন করেননি। ২০০৩ সালে প্রথমবার বাংলাদেশিরা আবেদন করেন। তখন থেকে এ পর্যন্ত মোট আবেদন করেছেন ৩ হাজার ৫ জন বাংলাদেশি। এর মধ্যে ২০১৪ সালে ২৫০, ২০১৩ সালে ২৮৫, ২০১১ সালে ২৭৬, ২০১০ সালে ৭৪, ২০০৯ সালে ৮৬, ২০০৮ সালে ৬৮, ২০০৭ সালে ১৪৯, ২০০৬ সালে ৩৪১, ২০০৫ সালে ৮৫২, ২০০৪ সালে ২০৪ ও ২০০৩ সালে ৩২ জন আবেদন করেন। সূত্রমতে, দুদকের অনুসন্ধান চালানো কর্মকর্তারা দীর্ঘ তালিকা নিয়ে অনুসন্ধান শুরু করেছেন। তালিকা ও প্রাপ্ত পরিসংখ্যান নিয়ে তারা পর্যালোচনা করছেন। পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সরকার পরিবর্তনের সময়গুলোয় আবেদনের হিড়িক পড়ে যায়। সর্বশেষ আওয়ামী লীগের ছয় বছরে মোট আবেদন পড়েছে ১ হাজার ৩৫৯টি। ওয়ান-ইলেভেনে দুই বছরে আবেদন করেছিলেন ২১৭ জন। এর আগে বিএনপি-জামায়াতের চার বছরে আবেদন জমা পড়ে ১ হাজার ৪২৯টি। সূত্রমতে, দূদকের পক্ষ থেকে মালয়েশিয়া সরকারের কাছে তালিকা চেয়ে চিঠি পাঠানো হচ্ছে। শীর্ষ পর্যায়ের অনুমোদনের জন্য একটি ফাইলও প্রস্তুত করা হয়েছে। অনুমোদন পাওয়া গেলে মালয়েশিয়া সফরেও যাবেন দুদক প্রতিনিধিরা। জানা যায়, মালয়েশিয়ার পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে পরিচালিত এমএমটুএইচ প্রজেক্টের মালয়েশিয়ার বাইরে কোনো অনুমোদিত এজেন্ট নেই। কিন্তু দিন দিন জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকায় এমএমটুএইচের বাংলাদেশে সাব-এজেন্টের সংখ্যা বাড়তে থাকে। বিভিন্ন অনলাইন সামাজিক মাধ্যমে বিজ্ঞাপন শুরু হয়। উত্তরার এক সাব-এজেন্টের কার্যালয়ে সেকেন্ড হোমের আগ্রহ জানানো হয়েছে, বিশ্বের তৃতীয় সাশ্রয়ী অবসরকালীন অভিবাসন সুবিধা মালয়েশিয়ার সেকেন্ড হোম। ১০ বছরের জন্য নন-মালয়েশিয়ান ভিসার জন্য আবেদন করতে বাংলাদেশি ৫০ বছরের অনূধর্্বদের অ্যাকাউন্টে জমা থাকতে হয় ৫ লাখ রিঙ্গিত বা ১ কোটি ৬ লাখ টাকা এবং মালয়েশিয়ার ব্যাংকে ফিঙ্ড ডিপোজিট করতে হয় ৬৫ লাখ টাকা। ৫০-ঊধর্্ব বয়সীদের জন্য অ্যাকাউন্টে থাকতে হবে সাড়ে ৩ লাখ রিঙ্গিত বা ৭৫ লাখ টাকা। মালয়েশিয়ায় ফিঙ্ড ডিপোজিট করতে হবে ৩২ লাখ টাকা। তবে উভয় ক্ষেত্রে মাসিক আয় হতে হবে কমপক্ষে ২ লাখ ১২ হাজার টাকা। বাংলাদেশ থেকে বৈধ উপায়ে এত টাকা মালয়েশিয়া বা অন্য কোনো দেশে পাঠানোর উপায় নেই জানালে বাংলাদেশি এক সাব-এজেন্টের উত্তর- ‘টাকা পাঠানোর চিন্তা আমাদের। দেশের ভিতরে এক জেলা থেকে আরেক জেলায় টাকা পাঠাতে যে সময় লাগে তার চেয়ে ১০ গুণ কম সময়ে পাঠানো হবে।’ মতিঝিলের আরেক সাব-এজেন্টের বক্তব্য- ‘আপনি মালয়েশিয়ায় কারও কাছে ফোন করলে রিং বাজার আগেই তার কাছে টাকা পাঠানো যাবে।’

সম্প্রতি সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মালয়েশিয়ার আমপাং, মালাক্কা, কোচাইলামা, ক্যামেরন হাইল্যান্ড ও শাহ-আলম শহরে বাংলাদেশিরা বাড়ি কিনে বসবাস করছেন। মালয়েশিয়ার আমপাং শহরের বাসিন্দা ও বাংলাদেশের অধিবাসী ডা. হুমায়ুন কবির জানান, আড়াই বছর আগে তিনি মালয়েশিয়ায় আসেন। সেকেন্ড হোমের জন্য প্রতি তলায় দেড় হাজার বর্গফুটের স্পেসসহ বাড়ি কিনেছেন ১ লাখ ২৫ হাজার রিঙ্গিত দিয়ে। বাংলাদেশি টাকায় দাম ২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। তিন তলা ভবনের দোতলায় তিনটি রুম ও তৃতীয় তলায় দুই বেড ও একটি গেস্ট রুম রয়েছে। প্রতিটি রুমের সঙ্গে রয়েছে বাথ ও টয়লেট আলাদাভাবে। নিচ তলায় রয়েছে ড্রইংরুম, কিচেন, ডাইনিংরুম ও সার্ভেন্টরুম। বাড়ির সামনে রয়েছে গার্ডেন ও কার পার্কিং। দুদক কমিশনার মো. সাহাবুদ্দিন চুপ্পু গত সপ্তাহে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, ‘মালয়েশিয়ায় সেকেন্ড হোমে অবৈধভাবে অর্থ পাচার বর্তমানে বাংলাদেশে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। এরই মধ্যে আমরা বেশকিছু তথ্য পেয়েছি। আশা করা হচ্ছে অবৈধভাবে বিনিয়োগকারীদের ধরতে আগামী তিন মাসের মধ্যেই বাংলাদেশ-মালয়েশিয়া সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হবে।’ তিনি বলেন, ‘দুদক জাতিসংঘের দুর্নীতিবিরোধী কনভেনশন আনকাকের সদস্য। সে সূত্রেই মালয়েশিয়ার সঙ্গে চুক্তি করার চেষ্টা চলছে। ইতিমধ্যে এ লক্ষ্যে আমরা ইমিগ্রেশনে চিঠি দিয়েছি। মন্ত্রিপরিষদেও এ বিষয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। আশা করি জুনের মধ্যেই সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হবে।’ মেহেদী হাসান

 

বাংলাদেশ প্রতিদিন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here