Home > বিশ্বজুড়ে > শিশু হত্যা : আন্তর্জাতিক আদালতে যাবে ফিলিস্তিন

শিশু হত্যা : আন্তর্জাতিক আদালতে যাবে ফিলিস্তিন

উগ্রপন্থী ইহুদীদের দেওয়া আগুনে ১৮ মাস বয়সী শিশু নিহতের ঘটনায় ইসরায়েলকে দায়ী করে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) অভিযোগ দায়ের করবে ফিলিস্তিন। দেশটির প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস শুক্রবার এ কথা জানান। খবর আলজাজিরার।
আব্বাস জানিয়েছেন, দ্য হেগভিত্তিক আন্তর্জাতিক আদালতে অভিযোগ দায়ের করতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।
তিনি বলেন, ‘আমরা সঠিক বিচার চাই। তবে ইসরায়েল সঠিক বিচার করবে কিনা তা নিয়ে আমার সংশয় রয়েছে।’
তিনি আরও বলেন, ‘ইসরায়েল সরকার যখন সব জায়গায় বসতি (অবৈধ ইহুদী বসতি) নির্মাণে উৎসাহিত করে, তখন তারা এ ধরনের হামলারও উস্কানি দেয়। এটা যুদ্ধাপরাধ এবং আমাদের জন্য বেদনাদায়ক।’
এর আগে গত শুক্রবার সকালে ইহুদীদের অগ্নিসংযোগে ঘুমন্ত শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড় ওঠে। এ ঘটনার নিন্দা জানান ইসরায়েলী প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুও। তিনি দোষীদের ধরা ও সন্ত্রাস নির্মূলে ফিলিস্তিনের সঙ্গে একত্রে কাজ করার ঘোষণা দেন।
গাজা শাসনকারী হামাস সরকারও ইহুদীদের এ ঘৃণ্য আচরণের নিন্দা জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসনের পক্ষ থেকে এটাকে ‘সন্ত্রাসী’ হামলা হিসেবে উল্লেখ করে নিন্দা জানানো হয়েছে।
মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে খুনীদের ধরতে ইসরায়েল সরকারের প্রতি আহ্বান জানানোর পাশাপাশি ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনকে উত্তেজনা প্রশমনের আহ্বান জানানো হয়েছে।
ইসরায়েলী আগুনে নিহত আলী সাদ দওয়াবশেহকে গত শুক্রবার বিকেলেই দাফন করা হয়। হাজারো ফিলিস্তিনী তার জানাজায় উপস্থিত ছিলেন।
পশ্চিমতীরের নাবলুস শহরের পাশে দৌমা গ্রামে শুক্রবার সকালে ঘটা একই ঘটনায় গুরুতর আহতাবস্থায় সাদের বাবা-মা ও চার বছর বয়সী ভাই ইসরায়েলী হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাদের শরীরের বেশিরভাগই পুড়ে গেছে।
এদিকে এ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করার সময় ফিলিস্তিনের রামাল্লায় ১৪ বছর বয়সী এক ফিলিস্তিনী অগ্নিদগ্ধ হয়। গুরুতর আহতাবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার এক ঘণ্টা পর মারা যান লাইথ খালদী।
তবে ইসরায়েলী সেনাবাহিনী জানিয়েছে, নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের লক্ষ্য করে ককটেল ছোড়ার সময় সেনা সদস্যরা তার গায়ে গুলি করে।
এ ছাড়া একই দিন গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলী সেনার গুলিতে অপর্ এক ফিলিস্তিনী নিহত হয়েছেন।
পশ্চিম তীরের অধিকৃত অঞ্চলে ফিলিস্তিনীদের ওপর প্রায়ই হামলা চালিয়ে থাকে অবৈধ বসতি স্থাপনকারী ইহুদিরা। জাতিসংঘের তথ্যমতে, ওই অঞ্চলে ২০১৫ সালের শুরু থেকে এ পর্যন্ত ফিলিস্তিনীদের ওপর অন্তত ১২০টি হামলার ঘটনা ঘটেছে।
ইসরায়েলী মানবাধিকার সংস্থা ইয়েশদিন এক প্রতিবেদনে বলেছে, ইসরায়েলী পুলিশের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনীদের উত্থাপন করা ৯২ দশমিক ৬ শতাংশ অভিযোগই আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত হয় না।