খালেদার প্রচারে নিষেধাজ্ঞা ইসির

সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রচারণা নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন হিসেবে গণ্য করে এতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। পাশাপাশি এ ধরনের প্রচারণা বন্ধের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার এবং নির্বাচনে দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেটদের নির্দেশ দিয়েছে। গতকাল শুক্রবার ইসি এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা অনুমোদন করে।

ইসি সচিবালয় সূত্র জানায়, গতকাল সকালেই এ বিষয়ে একটি ফাইল প্রস্তুত করে ওই ফাইলে অনুমোদন নেওয়ার জন্য ইসি সচিবালয়ের উপসচিব সামসুল আলম নির্বাচন কমিশনারদের বাসায় যান এবং তাঁদের স্বাক্ষর সংগ্রহ করেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে নির্বাচন কমিশনার মো. আব্দুল মোবারক এ ফাইলে সই করেন এবং সর্বশেষ সিইসির অনুমোদন নিয়ে রাতেই এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছিল। আব্দুল মোবারক গত রাতে কালের কণ্ঠকে বলেন, খালেদা জিয়াকেও ইসির এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার আবু হাফিজ গতকাল বিকেলে বলেন, খালেদা জিয়া যেভাবে গাড়িবহর নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন তা নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন। এ কারণে ওই ধরনের প্রচারণা বন্ধের পক্ষে কমিশন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

খালেদা জিয়ার ওপর হামলা প্রসঙ্গে এ নির্বাচন কমিশনার বলেন, এটি নিন্দনীয় ঘটনা এবং ফৌজদারি অপরাধ। তবে এ ধরনের অপরাধে নির্বাচন কমিশনের কিছু করার নেই। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দায়িত্ব পুলিশের।

ইসি সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম গত রাত ৮টায় কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আজ (শুক্রবার) রাতেই পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেটদের এ ব্যাপারে নির্দেশনা পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসনের আচরণবিধি মেনে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে কোনো বাধা নেই। কিন্তু তিনি যেভাবে প্রচার চালাচ্ছেন তা আইনসংগত নয়।’ ইসি সচিব পরে জানান, সিদ্ধান্ত কিছুটা পরিবর্তন করে রিটার্নিং অফিসারের মাধ্যমে পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেটদের ইসির এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের সঙ্গে দেখা করে আওয়ামী লীগ সমর্থিত ‘সহস্র নাগরিক কমিটি’র একটি প্রতিনিধিদল বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন, ভোটাধিকার হরণের ষড়যন্ত্র ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বিঘ্ন ঘটানোর অভিযোগ এনে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি জানায়।

এ সময় ওই সংগঠনের পক্ষ থেকে সিইসিকে দেওয়া এক চিঠিতে বলা হয়, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কয়েক দিন যাবৎ তাদের সমর্থিত প্রার্থীদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য, রাজপথ বন্ধ করে সভা-সমাবেশ, পথচারীদের চলাচলে বাধা, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত যানজট সৃষ্টি, মোটর শোভাযাত্রাসহ নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রম পরিচালনাসহ নানা আইনবহির্ভূত কর্মকাণ্ডে লিপ্ত রয়েছেন, যা জনগণের ভোটাধিকার হরণের পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র এবং বিদ্যমান শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক পরিবেশকে বিঘ্নিত করার প্ররোচনা ও উসকানিমূলক কর্মকাণ্ডের নামান্তর। এ কর্মকাণ্ড সম্পূর্ণরূপে নির্বাচনী আচরণ, আইন, নিয়মকানুন ও বিধিবহির্ভূত।

তার আগে ২২ এপ্রিল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের রিটার্নিং অফিসার মিহির সারওয়ার মোর্শেদ এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসনের গাড়ির বহর নিয়ে নিজ দল সমর্থিত মেয়র পদপ্রার্থীর পক্ষে প্রচারণার সময় জনগণের চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হয়েছে, যা নির্বাচনী আচরণ বিধিমালার পরিপন্থী। এ ছাড়া নির্বাচনী প্রচারণার সময় রাজনৈতিক কোনো বক্তব্যও উত্তেজনাকর পরিবেশ সৃষ্টি করে, যা কাম্য নয়। গত মঙ্গলবার ফকিরাপুলে এবং অন্যান্য জায়গায় এ ধরনের প্রচারণা চালান। আমরা এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সংশ্লিষ্ট মেয়র প্রার্থী মির্জা আব্বাসকে (গত বুধবার) চিঠি দিয়েছি।’

ওই চিঠিতে বলা বলা হয়, ‘আপনার পক্ষে বাংলাদেশ জাতীয়বাদী দল-বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া প্রচারণা চালান, তখন তাঁর গাড়িবহরের কারণে রাস্তায় যান চলাচল বিঘ্ন ঘটে, যা আচরণবিধি লঙ্ঘনের শামিল।’

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের রিটার্নিং অফিসার শাহ আলমও এ সিটির বিএনপি সমর্থিত মেয়র পদপ্রার্থী তাবিথ আউয়ালকে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে প্রচার চালাতে সতর্কতামূলক চিঠি দিয়েছেন। এ বিষয়ে শাহ আলমের পক্ষে তাঁর অফিসে কর্মরত নির্বাচন কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম এ প্রতিবেদককে জানান, ওই চিঠিতে কারো নাম বা গাড়িবহরের কথা উল্লেখ না করে শুধু নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে প্রচার চালাতে বলা হয়।

সিটি করপোরেশন নির্বাচন আচরণ বিধিমালার ৬-এর ১ ‘খ’ বিধিতে বলা আছে, ‘জনচলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি করিতে পারে এইরূপ কোন সড়কে প্রার্থী বা প্রার্থীর পক্ষে কোন ব্যক্তি পথসভা করিতে পারিবেন না।’ ৬-এর ৪ ‘খ’ বিধিতে বলা আছে, ‘যানবাহন সহকারে মিছিল বা কোনরূপ শো-ডাউন করা যাবে না।’

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রিটার্নিং অফিসার ও নির্বাচন কমিশনের এসব পদক্ষেপের আগে খালেদা জিয়াকে বাধা দেওয়া ও হামলার প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশন সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ও তথ্যপ্রমাণ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত ১৯ এপ্রিল সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক বৈঠকে খালেদা জিয়া নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করেছেন কি না তা কমিশনের কাছে জানতে চান পুলিশ মহাপরিদর্শক। কিন্তু এ বিষয়ে কমিশন নিরুত্তর থাকে। তবে ওই বৈঠকের পর এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) বলেন, ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচন আচরণ বিধিমালা অনুসারে সরকারের কোনো মন্ত্রী, উপমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী বা তাঁদের সমমর্যাদায় সরকারি সুবিধাভোগী কোনো ব্যক্তি অংশ নিতে পারবেন না। জাতীয় সংসদের স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার, চিফ হুইপ ও হুইপ এই নিষেধের তালিকায় রয়েছেন। এ তালিকার বাইরে যাঁরা রয়েছেন তাঁদের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে কোনো বাধা নেই।’

প্রসঙ্গত, নিজ দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও মির্জা আব্বাসের পক্ষে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির বিভিন্ন এলাকায় গত শনিবার থেকে টানা পাঁচ দিন গাড়িবহর নিয়ে প্রচার চালান বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এরপর গত বৃহস্পতিবার বাদ রেখে গতকাল শুক্রবার বিকেলেও উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকার নতুন বাজার ও যমুনা ফিউচার পার্ক এলাকায় একইভাবে প্রচারণা চালান তিনি। এর মধ্যে চার দিনই তাঁর প্রচারে বাধা ও গাড়িবহরে হামলার ঘটনা বলা হয়। এর মধ্যে কারওয়ান বাজারে খালেদা জিয়ার ওপর হামলার ঘটনায় তেজগাঁও থানায় দুই পক্ষ মামলা করে। ওই মামলা নিরপেক্ষভাবে দ্রুত নিষ্পত্তি করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে গত মঙ্গলবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের জানান। সর্বশেষ গত বুধবার বাংলামটরে হামলার পর ওই দিন রাতে অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ বিএনপিপন্থী সংগঠন ‘আদর্শ ঢাকা আন্দালন’-এর একটি প্রতিনিধিদল সিইসির বাসায় গিয়ে একটি অভিযোগপত্র দিয়ে আসে। এ ছাড়া ২১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসার ও নির্বাচন কমিশনের কাছে লিখিত দাবি জানান ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। তিনি কমিশনের কাছে অভিযোগ করেন, গত সোমবার কারওয়ান বাজারে অনুষ্ঠিত পথসভায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রচারণাকালে আওয়ামী লীগের সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আনিসুল হকের সমর্থকরা হামলা চালায়। খালেদা জিয়াকে হত্যা করার লক্ষ্যে আওয়ামী লীগের কর্মীরা পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী বিভিন্ন ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র ও ইট-পাটকেল, পাথর ও লাঠিসোঁটা নিয়ে তাঁর গাড়িবহর ও তাবিথের সমর্থকদের ওপর আক্রমণ করে। এতে বিএনপির অনেক নেতা-কর্মী মারাত্মকভাবে আহত হয়। সন্ত্রাসীরা খালেদা জিয়ার গাড়ি, অ্যাম্বুল্যান্সসহ অনেক গাড়ি ভাঙচুর করে। বিএনপি চেয়ারপারসনকে হত্যার উদ্দেশ্যে তাঁর গাড়িতে গুলি চালানো হয়। তবে বুলেটপ্রুফ গাড়ি হওয়ায় তিনি প্রাণে বেঁচে যান। সিটি করপোরেশন নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা ২০১০ এর ৯ ও ১০ ধারা অনুযায়ী জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ও কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তিনি।

ওই দিনই সিইসি সাংবাদিকদের বলেন, ‘খালেদা জিয়ার ওপর হামলার ঘটনা তদন্ত করে নিরপেক্ষভাবে দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে আমরা পুলিশের কাছ থেকে খবর নিয়েছি, তাঁরা বলেছেন, দুই দিক থেকে মামলা হয়েছে। আমরা পুলিশকে বলেছি, অত্যন্ত নিরপেক্ষভাবে এবং অতি দ্রুততম সময়ের মধ্যে যেন এটা নিষ্পত্তি করা হয়।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here