১৫ মিনিট হাঁটার ১৪টি উপকারিতা, যা জানলে আপনি কখনো হাঁটতে ভুলবেন না

30
১৫ মিনিট হাঁটার ১৪টি উপকারিতা

ওজন কমানোর জন্য হাঁটা খুবই ভালো। কিন্তু হাঁটার উপকারিতা আরো ব্যাপক। উচ্চ-শক্তি ও ভালো মেজাজ থেকে শুরু করে মানসিক চাপ কমানো, সৃজনশীলতা বৃদ্ধি এবং আরও অনেক কিছু। এই প্রবন্ধে আমরা আলোচনার করবো হাঁটার উপকারিতা সম্পর্কে, যা জানলে আপনি নিয়মিত হাঁটতে ভুলবেন না!

লেখাটিতে যা আছে.... লুকিয়ে রাখুন

হাঁটার উপকারিতা -০১ : হ্যাপিনেস বা সুখ

যখন আপনার কোনো দিন খারাপ যায় অথবা জীবনটাই খারাপ কাটছে, এমন মুহূর্তে হাঁটা আপনার মেজাজকে (মুড) ভালো করে তুলতে পারে। বিশেষ করে যখন আপনি বাইরে যান।

আমেরিকান জার্নাল অফ প্রিভেনটিভ মেডিসিন-এ প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় এ তথ্য উঠে এসেছে।
গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের যারা সপ্তাহে গড়ে ১৫০ মিনিট মাঝারি ব্যায়াম (গল্ফ, টেনিস, অ্যারোবিক্স ক্লাস, সাঁতার, বা লাইন-ড্যান্স) বা ২০০ মিনিট হেঁটেছেন- তারা উচ্চ-শক্তির মাত্রা (High Energy Level), ভালো মানসিক স্বাস্থ্য এবং আরও শক্তিশালী সামাজিক জীবন লাভ করেছেন।

প্রায় তিন বছর পর্যবেক্ষণের পরে গবেষকেরা এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন।

আপনি যদি মুড উন্নত করতে চান তবে আপনার ঠিক কতক্ষণ হাঁটতে হবে তা খুঁজে বের করুন।

হাঁটার উপকারিতা -০২ : অসাধারণ সৃজনশীলতা

কোনো বিষয়ে আটকে গেছেন? কী করবেন খুঁজে পাচ্ছেন না? মাথায় আইডিয়া আসছে না? রুম বা বাসার চার পাশে হাঁটুন।
আপনার কর্মক্ষেত্রে কোনো সমস্যা সমাধানের প্রয়োজন হোক বা আপনি আপনার উপন্যাসের জন্য অনুপ্রেরণা খুঁজছেন, আপনার সৃজনশীলতা সব ক্ষেত্রে প্রবাহিত করার জন্য হাঁটা একটি ভালো ব্যায়াম।

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, হাঁটা সৃজনশীল ফলাফল ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি করতে পারে। ঘরে ভেতরে বা বাইরে উভয় ওয়ার্কআউটের জন্য একই ফলাফল পাওয়া গেছে।

হাঁটার উপকারিতা -০৩ : অ্যাজমা রোগীদের ব্যায়াম

আপনার যদি ব্যায়ামের কারণে অ্যাজমা (হাপানি) বেড়ে যাওয়ার প্রবণতা থাকে, তবুও আপনাকে ব্যায়াম বাদ দিতে হবে না। আপনাকে সঠিক অবস্থায় সঠিক ব্যায়াম খুঁজে বের করতে হবে। এক্ষেত্রে হাঁটা হতে পারে আপনার জন্য আদর্শ ব্যায়াম।

আমেরিকান কলেজ অব অ্যালার্জি, অ্যাজমা অ্যান্ড ইমিউনোলজি জানিয়েছে- হাঁটা, সাঁতার, গল্ফ এবং অবসরে সাইকেল চালালে আপনার শ্বাসনালীতে জ্বালা করার আশংকা কম।

হাঁটা উষ্ণ আবহাওয়ায় আপনি করতে পারেন। এমনকি এর জন্য খুব বেশি ধৈর্যেরও প্রয়োজন হয় না।

 

হাঁটার উপকারিতা -০৪: সর্বোচ্চ মেটাবলিজম

মেটাবলিক সিনড্রোম তথা বর্ধিত রক্তচাপ/কোলেস্টেরল, রক্তে উচ্চ শর্করা এবং আপনার কোমরের চারপাশে চর্বি-এর দুষ্ট প্রভাব- আমাদের বসে থাকা জীবনযাত্রার সবচেয়ে খারাপ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে একটি। এটি ডায়াবেটিস, হৃদরোগ এবং এমনকি তাড়াতাড়ি মৃত্যুর সংকেত দেয়। কিন্তু আমাদের কাছে এই আধুনিক দিনের রোগের একটি পুরানো নিরাময় রয়েছে: ব্যায়াম।

নাইজেরিয়ান মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে দিনে এক ঘণ্টার বেশি হাঁটাহাঁটি করলে মেটাবলিক সিনড্রোম হওয়ার আশংকা ২৯ শতাংশ কমে যায়।

উল্লেখ্য প্রাণিদেহে জীবন্ত কোষগুলিতে যে রাসায়নিক চেন্জগুলি হয় এর ক্রিয়া-বিক্রিয়াকে আমরা বলি মেটাবলিজম। মেটাবলিজমের কারণে প্রাণিদেহ টিকে থাকে ও বেড়ে ওঠে। দেহের গঠন ঠিক থাকে, পুনরুৎপাদনে সক্ষম হয় এবং পরিবেশের সাথে নিজেকে খাপ খাইয়ে নিতে পারে। বয়স ও লিঙ্গভেদে মেটাবলিজমের হার ভিন্ন হয়। আর উচ্চতর মেটাবলিজম নিশ্চিত করা যায় হাঁটার মাধ্যমে।

১৫ মিনিট হাঁটার ১৪টি উপকারিতা
গবেষণা মতে, দ্রুত হাঁটা আপনার আয়ু বাড়াতে পারে

হাঁটার উপকারিতা -০৫ : বেশি দিন বাঁচুন

আরও বেশি দিন বাঁচতে চান? হাঁটুন। তবে দীর্ঘায়ু পেতে হাঁটায় গতি আনুন। ইউকে’র মায়ো ক্লিনিকের পর্যবেক্ষণমূলক গবেষণা মতে, দ্রুত হাঁটা আপনার আয়ু বাড়াতে পারে, যাদের গতি কম ছিল তাদের তুলনায়।

হাঁটার উপকারিতা -০৬ : অর্থ সাশ্রয়

ফিটনেস রক্ষায় খরচ আছে। একটি জিমের সদস্যপদ, ঘরোয়া ব্যায়ামের সরঞ্জাম, ওয়ার্কআউটের জন্য জামাকাপড় এবং জুতা-মোজা ইত্যাদি আরো কত কী!
কিন্তু হাঁটার জন্য একেবারেই কিছুর প্রয়োজন হয় না—এমনকি জুতাও ঐচ্ছিক!—কিন্তু এটাও স্বাস্থ্যের জন্য দারুণ উপকারী।

এটি শুধুমাত্র ব্যায়ামের সরঞ্জামেই আপনার অর্থ সাশ্রয় করে না, এটি স্বাস্থ্যসেবাতেও আপনার অর্থ সাশ্রয় করে। আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন জার্নালের একটি সমীক্ষা অনুসারে, যারা নিয়মিত ব্যায়াম করেন তারা, ব্যায়াম করেন না এমন লোকদের স্বাস্থ্যসেবা খরচের ক্ষেত্রে অনেক ডলার সাশ্রয় করেন।

সুতরাং আপনিও নিয়মিত হেঁটে টাকা বাঁচান।

হাঁটার উপকারিতা -০৭ : গভীর ঘুম

আট ঘণ্টা নিরবিচ্ছিন্ন ঘুম আপনার স্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিসগুলির মধ্যে একটি। কিন্তু কখনও কখনও এটি বলা সহজ, করা কঠিন। অনেকে শুয়ে থেকেও ঘুমাতে পারেন না।
দ্রুত হাঁটা এক্ষেত্রে আপনার জন্য সহায়ক হতে পারে।

স্লিপ ফাউন্ডেশনের মতে, গবেষকরা দেখেছেন যে- যারা নিয়মিত হাঁটেন, তারা অনেক দ্রুত ঘুমিয়ে পড়েন এবং বেশি ঘুমাতে পারেন। যারা কঠিন ব্যায়াম করেছেন বা ওজন তুলেছেন তাদের চেয়েও ভালো মানের ঘুম পেয়েছেন।

হাঁটার উপকারিতা -০৮ : দুশ্চিন্তা ও চাপমুক্ত থাকুন

আপনি যদি মানসিক চাপে থাকেন তবে হাত তুলুন।
ঠিক আছে, ঠিক আছে, আপনার নামান।
আমাদের বেশিরভাগই প্রতিদিন স্ট্রেস বা চাপের সমুদ্রে সাঁতার কাটে। এটি আমাদের মানসিক ও শারীরিক স্বাস্থ্যের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলে। তবে বিজ্ঞান বলে যে হাঁটা হলো চাপমুক্ত হওয়ার দ্রুততম, সবচেয়ে কার্যকর উপায়গুলির মধ্যে একটি।

অ্যাংজাইটি অ্যান্ড ডিপ্রেশন অ্যাসোসিয়েশন অব আমেরিকার মতে, একটি সাধারণ ১০ মিনিটের হাঁটা দুশ্চিন্তা ও বিষণ্নতা হ্রাস করার ক্ষেত্রে ৪৫ মিনিটের ওয়ার্কআউটের মতো কার্যকর হতে পারে। হাঁটা-চলা আপনার দেহ থেকে কর্টিসল, “স্ট্রেস হরমোন” পরিষ্কার করে এবং আপনার মনের ভেতর দিয়ে যাওয়া দুশ্চিন্তার অন্তহীন স্রোতকে থামাতে সাহায্য করে।

হাঁটার উপকারিতা -০৯ : ব্রেনের ক্ষয় রোধ করুন

এটি প্রমাণিত যে, হাঁটা আপনার মস্তিষ্কের জন্যও ভালো। নিউ মেক্সিকো হাইল্যান্ডস ইউনিভার্সিটির (NMHU) গবেষকরা আবিষ্কার করেছেন যে, আপনি যখন হাঁটেন, তখন আপনার পায়ের দ্বারা মাটিতে দেয়া চাপ ধমনীর মাধ্যমে তরঙ্গ পাঠায় যা মস্তিষ্কে রক্ত প্রবাহ বাড়ায়।
এমন কি, হাঁটা আপনার মস্তিষ্ককে সুরক্ষিত করে আপনার ব্রেইনের অসুস্থতা যেমন- আলঝাইমার রোগ এবং অন্যান্য ধরনের ডিমেনশিয়া হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

হাঁটার উপকারিতা -১০ : ওষুধ-মুক্ত ব্যথানাশক

দীর্ঘস্থায়ী ব্যথাকে একটি নীরব মহামারী বলা হয়েছে। প্রায় ১০০ মিলিয়ন আমেরিকান বর্তমানে এটির সাথে বসবাস করছে। বাংলাদেশে যদিও কোনো পরিসংখ্যান নেই, তবুও সংখ্যাটা কম হবে না।
আপনি সেই ব্যক্তিদের মধ্যে একজন হন যারা প্রতিদিনের ব্যথার সাথে লড়াই করছেন এবং নিরাময়ের জন্য শেষ চেষ্টাটি করতে চান, তাহলে উঠুন। হাঁটতে যান।

অ্যানালস অফ রিহ্যাবিলিটেটিভ মেডিসিনে প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, নিয়মিত হাঁটার রুটিন গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের দীর্ঘস্থায়ী পিঠের ব্যথা হ্রাস করেছে।

হাঁটা দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা নিরাময় করতে সক্ষম না-ও হতে পারে, তবে এটি আপনাকে আরও ভালোভাবে ব্যাথা মোকাবেলায় সহায়তা করতে পারে।

হাঁটার উপকারিতা – ১১: মজবুত হাড়

মজবুত হাড় গঠনে হাঁটার গুরুত্ব অনেক। শক্তিশালী হাড়ের মানুষ অস্টিওপোরোসিস থেকে রক্ষা পান। এর সাথে আসা সমস্ত সমস্যা, যেমন- ফ্র্যাকচার, অক্ষমতা ও মেরুদণ্ডের সংকোচন ইত্যাদি থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

আমেরিকান বোন হেলথ অ্যাসোসিয়েশন বলছে- দৌড়ানো, নাচা এবং হাঁটার মতো ব্যায়ামগুলো শক্ত ও সুস্থ হাড় পাওয়ার সর্বোত্তম উপায়।

গবেষকেরা দেখেছেন যে, ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে এসব ব্যায়ামের ফলে কোমড় ও রানের হাড় শক্তিশালীকরণে উল্লেখযোগ্য ও ইতিবাচক প্রভাব রেখেছে।

হাঁটার উপকারিতা -১২ : অসাধারণ দৃষ্টিশক্তি

আপনার হয়তো দেওয়াল দিয়ে দেখার ক্ষমতা থাকবে না, কিন্তু আপনি নিয়মিত হাঁটার মাধ্যমে বয়স বাড়ার সাথে সাথে আপনার দৃষ্টি রক্ষা করতে পারেন।

দ্য জার্নাল অফ নিউরোসায়েন্সে প্রকাশিত একটি গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে।
গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন যে, যারা নিয়মিত হাঁটাচলা তথা অ্যারোবিক ক্রিয়াকলাপ করেন তাদের চোখ সুস্থ থাকে। এছাড়া তাদের রেটিনার ক্ষয় এবং বয়সজনিত দৃষ্টিশক্তি হ্রাসের মতো সমস্যায় ভোগার সম্ভাবনা কম থাকে।

সুতরাং বয়স বাড়ার সাথে সাথে আপনি সুপারম্যান না হতে পারলেও, আপনার সুপার দৃষ্টি থাকবে তখনো।

হাঁটার উপকারিতা -১৩ : প্রিয়জনের সঙ্গে মানসম্মত সময় কাটানো

একা হাঁটা আপনার মাথা পরিষ্কার করা বা মাথা ঠাণ্ডা করার জন্য দারুণ হতে পারে। কিন্তু হাঁটা বন্ধুদের ও পরিবারের সাথে সম্পর্ক বৃদ্ধি করার একটি দুর্দান্ত সুযোগ হতে পারে। ব্যক্তিগত ডিভাইসগুলো রেখে পারস্পরিক আলাপ-আলোচনার একটি সুন্দর সময় হতে পারে হাঁটা-চলা।
এছাড়া আপনাকে যখন নিয়মিত হাঁটার সুবিধাগুলি পেতে দেখবে, তারাও তখন হাঁটতে উত্সাহিত হবে।

হাঁটার উপকারিতা – ১৪: বিনামূল্যে অলৌকিক ওষুধ

সাধারণভাবে ব্যায়াম, বিশেষ করে হাঁটা, একটি “অলৌকিক ওষুধ” হিসাবে উল্লেখ করার মতো। যা হৃদরোগ, স্ট্রোক, টাইপ-২ ডায়াবেটিস এবং কিছু ক্যান্সারের মতো দীর্ঘস্থায়ী রোগের ঝুঁকি কমায়।

সত্যি বলতে, আপনার বিশেষ কোনো রোগে হয়তো ওষুধ প্রয়োজন হতে পারে। তবে সেসব ওষুধের বিপরীতে, হাঁটার কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। এটি সহজলভ্য, সাশ্রয়ী মূল্যের, কার্যকরী। সর্বোপরি আপনার প্রেসক্রিপশনের কোনো প্রয়োজন নেই!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here