Home > জীবনধারা > বিচ্ছেদে বাড়ে হৃদরোগ; নারীরাই বেশি আক্রান্ত

বিচ্ছেদে বাড়ে হৃদরোগ; নারীরাই বেশি আক্রান্ত

সম্প্রতি মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের জরিপে দেখা গেছে, যাদের বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটেছে তাদের হৃদরোগে আক্রান্তের সম্ভবনা বেশি। এমনকি এক্ষেত্রে পুরুষের চেয়ে নারীদের ঝুঁকি তো আরও বেশি। নারীদের এই ঝুঁকি হ্রাসের জন্যে তাদের পুনরায় বিয়ের তাগিদ দিয়েছেন।
বিবাহ-বিচ্ছেদের দীর্ঘমেয়াদী ঝুঁকি সম্পর্কে জানতে এই জরিপটি চালানো হয়। এর আগে ব্রিটিশ হার্ট ফাউন্ডেশন বিবাহ-বিচ্ছেদের ঝুঁকি সম্পর্কে জানতে একাধিক জরিপ চালিয়েছে।
এর আগেই আমরা জেনেছি যে, খুব ভালোবাসার মানুষের মৃত্যু হলে হৃদরোগে আক্রান্তের সম্ভবনা কয়েকগুণ বেড়ে যায়। ডিউক ইউনির্ভাসিটির একদল গবেষকের করা সম্প্রতি জরিপেও একই ফলাফল দেখা গিয়েছে।
১৯৯২ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত জরিপে অংশ নেয়া প্রতি তিন দম্পতির মধ্যে এক দম্পতি বিবাহ-বিচ্ছেদের শিকার হয়েছে।
যেসব নারীর বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটেছে এবং তারা পুনরায় বিয়ে করেছেন এমন নারীদের মধ্যে ২৪ শতাংশ হৃদরোগের ঝুঁকি দেখা গেছে। অপর দিকে যেসব নারী একাধিকবার বিবাহ-বিচ্ছেদের শিকার হয়েছেন তাদের মধ্যে হৃদরোগের ঝুঁকি রয়েছে ৭৭ শতাংশ।
বিচ্ছেদে বাড়ে হৃদরোগ; নারীরাই বেশি আক্রান্ত
অপরদিকে পুরুষের ক্ষেত্রে একবার বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটলে ১০ শতাংশ হৃদরোগের ঝুঁকি থাকে। কিন্তু একাধিকবার বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটলে এই ঝুঁকি বেড়ে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে।
গবেষক প্রফেসর লিন্ডা জর্জ বলেন, ‘যাদের উচ্চ রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিসের ঝুঁকি রয়েছে তাদের মধ্যে হৃদরোগের ঝুঁকি বেশি দেখা যায়।’
তবে এই জরিপের সবচেয়ে মজার দিক হিসেবে জর্জ উল্লেখ করেন, বিবাহ-বিচ্ছেদের পরে পুনরায় বিয়ের ক্ষেত্রে নারীদের হৃদরোগের ঝুঁকি জ্যামিতিক হারে কমে। কিন্তু পুরুষের এই ঝুঁকি পুনরায় বাড়ে।’
জর্জ আরও বলেন, মূলত বিবাহিত নারীরা অবিবাহিত এবং তালাকপ্রাপ্তদের চেয়ে বেশি নিরাপত্তা অনুভব করেন। এছাড়াও প্রথমবার বিয়ের পর নারীরা যতোটা নিরাপত্তা অনুভব করেন, পরবর্তীতে এই হার কমে আসে।’
নারীদের নিরাপত্তা অনুভবের কারণ সম্পর্কে জর্জ বলেন, মূলত বিয়ের পরে জীবন যাত্রায় পরিবর্তন আসে। বিশেষ করে উপার্জনের চিন্তাটা অনেকাংশেই হ্রাস পায়।