গরমে সতেজ থাকতে কিছু প্রসাধনী

1426410058অফিস ছাড়াও আরও নানান কাজেই মানুষকে বাইরে যেতে হয়। কিন্তু সারাদিনে শুস্ক গরমে মানুষের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। শত চেষ্টা করেও যেন নিজেকে সতেজ আর প্রাণবন্ত রাখা কঠিন হয়ে পড়ছে। তাই নিজেকে ত্বকের সুরক্ষায় আর নিজেকে সবসময় ফ্রেশ রাখতে সঙ্গে রাখুন কিছু প্রসাধনী যা আপনাকে গরমের মাঝেও দিবে সতেজ আর সিগ্ধতার ছোঁয়া।

ওয়েট টিস্যুঃ মুখের জন্য ব্যবহার উপযোগী করেই তৈরি করা হয় ওয়েট টিস্যু। এই টিস্যুতে ল্যাভেন্ডার নামক একধরনের সুগন্ধি থাকে যা গরমেও আপনাকে সতেজ রাখতে সাহায্য করে। তাই বাইরে বের হয়ে সবসময় মুখ ধোঁয়া সম্ভব হয় না বলে, সাথে করে ওয়েট টিস্যু রাখা জরুরি। ওয়েট টিস্যু ত্বকের অতিরিক্ত তেল আর ময়লা দূর করে দেয়। সাধারনত সানস্ক্রিনের কার্যকারিতা ৩-৪ ঘন্টা থাকে। তাই সানস্ক্রিন ব্যবহারের ৩-৪ ঘন্টা পর, ওয়েট টিস্যু দিয়ে মুখ মুছে আবার সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে।

সানস্ক্রিনঃ রোদের অতি বেগুনী রশ্মির কারনে ত্বকের কালো দাগ প্রতিরোধ করতে সবচেয়ে কার্যকরী হল, সানস্ক্রিন। বাজারে ক্রিম, জেল, লোশন, স্প্রে, পাউডার বিভিন্ন প্রকারের সানব্লক বা সানস্ক্রিন পাওয়া যায়। ত্বক তৈলাক্ত হলে সানস্ক্রিন পাউডার বেছে নিতে পারেন। অন্যদিকে শুষ্ক ত্বকের জন্য উপযোগী হল লোশন। আর হাতে পায়ে ব্যবহার করুন সানস্ক্রিন জেল। ঠোঁটের জন্য সানস্ক্রিনযুক্ত লিপবাম কিনতে, নিশ্চিত হন, সানস্ক্রিনের এসপিএফ মানের উপর। সানস্ক্রিনের এসপিএফ মান যেন ৩০-এর কম না হয়।

টোনারঃ ত্বকের অতিরিক্ত তেল, ময়লা, মরা কোষ, ধুলা-বালি, মেকআপ তুলতে টোনার ব্যবহার করা হয়। সঠিক পদ্ধতিতে টোনার ব্যবহার করলে লোমকূপের আকার স্বাভাবিক ও পরিষ্কার থাকে। এটি ত্বকের সজীবতার পাশাপাশি ত্বকের ক্লান্তি দূর করে। তাই ওয়েট টিস্যু দিয়ে মুখ মোছার পর তুলোর বল দিয়ে টোনার নিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নিন। টোনারের মূল উপাদান হল, অ্যালকোহল। অ্যালকোহল ত্বক শুষ্ক করে দেয়। তাই শুষ্ক ত্বকের জন্য অ্যালকোহলমুক্ত টোনার ব্যবহার করতে হবে।

ব্লটিং পেপারঃ তৈলাক্ত ত্বকে মেকআপের কিছুক্ষণ পরই টি-জোনে তেল জমে। এই সমস্যা থেকে বাঁচতে  ব্লটিং পেপার ব্যবহার করা যায়। এটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল শুষে নিতে সাহায্য করে। ত্বকের যে স্থানে তেল জমে সেখানে ব্লটিং পেপার চেপে ধরে, হালকাভাবে কমপ্যাক্ট পাউডার বুলিয়ে নিন। এটা মেকআপ দীর্ঘস্থায়ী করতে সাহায্য করবে।

ফেসওয়াসঃ ব্যাগে সবসময় একটা ফেসওয়াস রাখা যায়। ত্বকের ধরনভেদে ফেসওয়াসও ভিন্ন হবে। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য লেবু বা কমলাসমৃদ্ধ ফেসওয়াস ভালো কাজে দিবে। এতে তেলতেলেভাব কমে যায়। স্ক্রাব বা দানাদারযুক্ত ফেসওয়াসও তৈলাক্ত ত্বকের জন্য উপকারী। তবে ব্রণের সমস্যা থাকলে দানাদারযুক্ত ফেসওয়াস ব্যবহার না করাই ভালো। এসময় নিম ফেসওয়াস কার্যকরী। অন্যদিকে শুষ্ক ত্বকের জন্য আমন্ড তেলসমৃদ্ধ ফেসওয়াশ বেশী কার্যকর।

তাই এই শুস্ক গরমে সতেজ থাকতে সবসময় নিজের হাতে কাছে এই প্রসাধনীগুলো রাখুন। আর নিজেকে সবসময় সতেজ প্রাণবন্ত অনুভব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here