বেতন বাড়ানোর প্রতিবাদে আন্দোলন

বেশির ভাগ ক্ষেত্রে অফিসের কর্মীদের কর্তৃপক্ষের কাছে বেতন বাড়ানোর দাবি করতে দেখা যায়। বেতন বাড়ানোর দাবিতে রীতিমতো আন্দোলনের ঘটনাও ঘটে। কিন্তু এবার উল্টো ঘটনা ঘটেছে কানাডায়। দেশটির ৫০০ জন চিকিৎসক তাঁদের বেতন বাড়ানোর কারণে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। চিকিৎসকেরা বলছেন, তারা ইতোমধ্যে অনেক বেশি বেতন পাচ্ছেন। তাদের আর বেতন বাড়ানোর প্রয়োজন নেই।

যুক্তরাজ্যের নিউজইউক.কম জানিয়েছে, শত-শত কানাডীয় চিকিৎসক, চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ, স্থানীয় বাসিন্দা ও মেডিকেল শিক্ষার্থীরা বেতন বাড়ানোর প্রতিবাদ জানিয়ে একটি আবেদনে স্বাক্ষর করেছেন। একই সঙ্গে তাদের জন্য বরাদ্দ করা অর্থ নার্সদের জন্য পুনর্বরাদ্দ এবং রোগীদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিতে তাগিদ দিয়েছেন।

চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে ফরাসি ভাষায় এক লিখিত পত্রে বলা হয়েছে, আমরা চিকিৎসকেরা শক্তিশালী সরকারি পদ্ধতিতে বিশ্বাস করি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের বেতন বৃদ্ধির ঘটনার প্রতিবাদ জানাই এবং এ বিষয়ে আমাদের মেডিকেল ফেডারেশনের সঙ্গে আলোচনার দাবি জানাচ্ছি।

সিএনবিসি টিভির তথ্য মতে, ২৫ ফেব্রুয়ারি পর সাত শ জনের বেশি বেতন না বাড়ানোর পক্ষে আবেদনে নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন। গত মঙ্গলবার পর্যন্ত অন্তত ২১৩ জন ইন্টার্ন চিকিৎসক, ১৮৪ জন বিশেষজ্ঞ, ১৪৯ জন আবাসিক মেডিকেল চিকিৎসক, ১৬২ জন মেডিকেল শিক্ষার্থী বেতন না বাড়ানোর পক্ষে আবেদনে স্বাক্ষর করেছেন।

চিকিৎসকরা বলছেন, সরকারি জন স্বাস্থ্যের বাজেট কর্তনের কারণে যখন নার্স ও অফিস করণিকেরা কষ্টের মধ্যে রয়েছেন এবং রোগীরা নিম্নমানের সেবা পাচ্ছেন ওই মুহূর্তে চিকিৎসকদের বেতন বাড়ানোর বিষয়টি অপমানজনক।

ওই আবেদনে বলা হয়েছে, আমাদের নার্স, করণিক এবং অন্য পেশাজীবীরা খুবই জটিল পরিস্থিতি মোকাবেলা করছেন। ঠিক তখন এই বেতন বাড়ানোর বিষয় বেদনাদায়ক। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ক্ষমতা কেন্দ্রীয়করণ এবং সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাজেট কাটছাটের কারণে যখন আমাদের রোগীরা প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবাহীন থাকছে, তখন তাদের বেতন বাড়ানোর বিষয়টি আতঙ্কজনক।

এমন পরিস্থিতে চিকিৎসকেরা তাদের বেতন না বাড়িয়ে নার্স ও অফিস কর্মচারী এবং রোগীদের প্রয়োজনী সেবা বাড়ানোর তাগিদ দিচ্ছেন।

সৌজন্যে : প্রথম আলো