পাক-ভারত সীমান্তে গুলিবিনিময়ে নিহত ১০

ভারত ও পাকিস্তানের বিতর্কিত সীমান্তে আজ শুক্রবার দুই পক্ষের গুলিবিনিময়ের ঘটনায় কমপক্ষে ১০ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। কর্মকর্তাদের সূত্রে এ কথা জানা যায়। কর্মকর্তারা বলছেন, দুই পক্ষের গোলাগুলিতে কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছেন।

এএফপির খবরে জানানো হয়, পাকিস্তানের সেনাবাহিনী জানিয়েছে, দেশটির পাঞ্জাব প্রদেশের শিয়ালকোটের কাছে ভারতের সেনাবাহিনীর গুলিতে ছয়জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে ভারতের সেনাবাহিনীর এক কর্মকর্তা বলছেন, ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর গুলিতে কমপক্ষে চারজন গ্রামবাসী নিহত হন।
জম্মু ও কাশ্মীরে পাকিস্তানি সেনার গুলি, নিহত ৩

পাকিস্তানের ঊর্ধ্বতন এক নিরাপত্তা কর্মকর্তা এএফপিকে বলেন, আজ স্থানীয় সময় ভোর তিনটার দিকে ভারতের সেনাবাহিনী প্রথমে গুলি ছোড়ে। দেশটির সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে জানানো হয়, শিয়ালকোটে ভারত গোলা বর্ষণ করে ও গুলি ছুড়তে থাকে। এতে ছয়জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হন। ২২ জন নারীসহ ৪৬ জন আহত হন।

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে সে দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) কর্মকর্তা রাকেশ কুমার শর্মা পাকিস্তানের দিকে অভিযোগ ছুড়ে দেন। তাঁর অভিযোগ, পাকিস্তান বেসামরিক নাগরিকদের ওপর কোনো উসকানি ছাড়াই মর্টার হামলা চালাচ্ছে।

ওই অঞ্চলের জ্যেষ্ঠ প্রশাসনিক কর্মকর্তা পবন কোতোয়াল বলেন, সীমান্তে গোলা বর্ষণের ঘটনায় চারজন গ্রামবাসী নিহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে তিনজন ভোরে মারা যান। আহত একজন পরে হাসপাতালে মারা যান।

বিএসএফের আরেক কর্মকর্তা জে এস ওবেরিও বলেন, পাকিস্তানের সেনাবাহিনী ভারতের সীমান্তের ১০টি চৌকিতে হামলা চালিয়েছে। এতে ১৬ জন গ্রামবাসী আহত হয়েছেন।

১৯৪৭ সালের পর থেকেই দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। দুই দেশ কয়েকবার যুদ্ধেও জড়িয়েছে।

সূত্রঃ প্রথমআলো