সুনির্দিষ্ট মামলায় প্রবীর ও শওকতকে গ্রেপ্তার

মতামত প্রকাশের জন্য নয়, সুনির্দিষ্ট মামলায় সাংবাদিক প্রবীর সিকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি।

মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘কণ্ঠরোধের জন্য নয়, মতামত প্রকাশের জন্যও নয়, তার (প্রবীর ) কারণে অন্যের জীবন হুমকির মুখে পড়ায় প্রবীর সিকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ফেইসবুকে লেখালেখিকে কেন্দ্র করে হুমকি পাওয়ার পর নিজের নিরাপত্তাহীনতার কথা তুলে ধরে ঢাকায় থানায় সাধারণ ডায়েরি করতে গিয়েছিলেন একাত্তরে শহীদের সন্তান প্রবীর সিকদার। কিন্তু পুলিশ ওই জিডি নেয়নি জানিয়ে গত ১০ অগাস্ট নিজের ফেইসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাসে নিজের জীবন নিয়ে ঝুঁকির কথা বলেন এই সাংবাদিক। এতে তিনি তার মৃত্যু হলে তার জন্য এলজিআরডি মন্ত্রী (স্থনীয় সরকার মন্ত্রী) ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি, রাজাকার নুলা মুসা ওরফে ড. মুসা বিন শমসের ও ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী আবুল কালাম আজাদ ওরফে বাচ্চু রাজাকার এবং তাদের অনুসারী ও সহযোগীদের দায়ি করেন।

এই লেখার মাধ্যমে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণের অভিযোগ তুলে রোববার রাতে ফরিদপুর সদর থানায় মামলা করেন স্বপন পাল নামের এক আইনজীবী।

তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় এই মামলা করা হয়। এর আগেই ওদিন সন্ধ্যায় তার বাসা থেকে প্রবীর সিকদারকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তাকে ফরিদপুরে নিয়ে সোমবার
আদালতে হাজির করে কারাগারে পাঠানো হয়।

নারায়ণগঞ্জের ১১ হত্যার মূল অভিযুক্ত সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা নূর হোসেনের বিষয়ে আসাদুজ্জামান খান কামাল জানান, শিগগিরই তাকে ফিরিয়ে আনা হবে। এ বিষয়ে ভারতের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

উল্লেখ্য, হত্যাকাণ্ডের পর ভারতে আশ্রয় নিলে সেখানে ধরা পড়ে নূর হোসেন। সে এখন ভারতের জেল হাজতে।

এদিকে ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি শওকত মাহমুদকে আটকের বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট অভিযোগে তাকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা ছিল। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে পান্থপথের সামুরাই কনভেনশন সেন্টারে আদর্শ ঢাকা আন্দোলনের এক মতবিনিময় সভা থেকে শওকত মাহমুদকে আটক করা হয়।