ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরী ছাড়া সারাদেশে ২০ দলের ৪৮ ঘণ্টার হরতাল

চলমান অবরোধ কর্মসূচির পাশাপাশি আগামীকাল সোমবার ভোর ৬ টা থেকে বুধবার ভোর ৬ টা পর্যন্ত দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণ সর্বাত্মক হরতালের ডাক দিয়েছে ২০ দলীয় জোট। তবে ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কারণে ঘোষিত হরতাল কর্মসূচি কেবলমাত্র ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীর আওতামুক্ত রাখা হয়েছে।

রোববার বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এই ৪৮ ঘণ্টা হরতালের ঘোষণা দেয়া হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিএনপি’র অন্যতম যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দীন আহমেদসহ বিরোধী দলের গুমকৃত অন্যান্য নেতা-কর্মীদের অবিলম্বে তাদের পরিবারের নিকট অক্ষত অবস্থায় ফিরিয়ে দেয়া, অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারকৃত বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের সিনিয়র নেতৃবৃন্দসহ সকল রাজবন্দীর মুক্তি এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থার অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবিতে ২০ দলীয় জোটের উদ্যোগে এ হরতালের ডাক দেয়া হয়েছে।

বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, বর্তমান অবৈধ এবং লুটেরা সন্ত্রাসী সরকার অবৈধ পন্থায় জাতির ঘাড়ে চেপে বসার পর স্বৈরতান্ত্রিক আচরণের মাধ্যমে দুর্নীতিবাজ ও ক্ষমতালোভী মন্ত্রী-এমপি ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্তাব্যক্তিরা প্রতিনিয়ত জনগণের আন্দোলন ও গণদাবি নিয়ে কটূক্তি ও নির্জলা মিথ্যাচারের আশ্রয় নিয়ে বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। আমরা স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই-খাঁচায় বন্দী সিংহের গায়ে খোঁচা দেয়া যত সহজ, মুক্ত সিংহের গায়ে খোঁচা দেয়া ততো সহজ নয়। অবৈধ ও বাকশালী পন্থায় ক্ষমতায় থেকে জনগণের সাথে মশকরা না করে গণদাবি অনুযায়ী নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থার অধীনে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করে গণমানুষের কাতারে আসুন। তখন দেখবেন জনরোষের আগ্নেয়গিরি ও স্ফুলিঙ্গের দহনে কিভাবে আপনাদের ক্ষমতার মসনদ জ্বলে পুড়ে ধুলায় মিশে যায়।

তিনি সরকারকে আলোচনার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এখনও সময় আছে-আলোচনার মাধ্যমে জাতীয় এই মহাসংকট উত্তরণে উদ্যোগী হোন। মানুষের বাক-ব্যক্তি স্বাধীনতাসহ সকল গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দিয়ে দেশে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনুন। অন্যথায় ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্দীপ্ত হয়ে জনগণ তাদের দাবি আদায়ে যেকোনো ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত রয়েছে।