ময়লার সাথে সালাহ উদ্দিনকে পাচার!

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সন্দেহ প্রকাশ করেছেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া তার দলের যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে ‘পাচার করে’ ফেলেছেন।

আজ শনিবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ আয়োজিত সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী এমন সন্দেহের কথা উল্লেখ করেন। তার সন্দেহ, কিছুদিন আগে খালেদা জিয়ার গুলশানের কার্যালয় থেকে আট বস্তা ময়লার সাথে সালাহ উদ্দিনকে পাচার করা হয়ে থাকতে পারে।

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও চারদলীয় জোট সরকারের সাবেক যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী সালাহ উদ্দিন আহমেদের স্ত্রী হাসিনা আহমেদের অভিযোগ, গত ১০ মার্চ মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর উত্তরায় এক আত্মীয়ের বাসা থেকে আইনশ্ঙ্খৃলা বাহিনীর সদস্যরা সালাহ উদ্দিনকে ধরে নিয়ে যান। এর পর থেকে তিনি নিখোঁজ আছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা হাসিনা আহমেদের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গতকাল শুক্রবার গুলশান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সালাহ উদ্দিন আহমেদকে অক্ষত ফিরিয়ে দেয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান।
এর একদিন পর আজ এক সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘ওনার (খালেদা জিয়া) একজন এপিএস ছিল। প্রতিদিন গভীর মানে আন্ডারগ্রাউন্ড, ডিপ আন্ডারগ্রাউন্ডে যেয়ে প্রতিদিন একটা বিবৃতি দিত। আচ্ছা, বিবৃতি দিচ্ছে, হরতাল অবরোধ চলছে। আপনারা বোধহয় লক্ষ করেছেন পত্রিকায়। কিছুদিন আগে ওই অফিস থেকে আট বস্তা ময়লা বের করেছে, সিটি করপোরেশনের সুইপার নিয়ে নাকি ওই অফিস থেকে আট বস্তা ময়লা বের করেছে। এখন উনি কালকে বললেন, ওনার এপিএসের নাকি খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। মানে ওই যে কী, তার পার্টির যুগ্ম সম্পাদক (বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ) বোধ হয়। না? (পাশের একজনকে প্রশ্ন করে) তার নাকি খবর পাওয়া যাচ্ছে না।’

প্রশ্ন করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি যেদিন দেখা করতে গেলাম তার সাথে, ওখানে তখনো জানি ওই যুগ্ম-সম্পাদক সালাহ উদ্দিন ওই অফিসেই আছে এবং সেখান থেকে বিবৃতি দিচ্ছে। এটাই সবাই জানে। কিন্তু সে পালাতে পালাতে কদ্দুর কোথায় গেছে, কেউ জানে না। এখন আমার প্রশ্ন ওই আট বস্তা ময়লা যে বের করল, ওর সাথে উনি আবার সালাহউদ্দিনকে পাচার করে দিছেন কি-না। কারণ এই পাচারের পরে উনি আবার প্রেস কনফারেন্স করলেন। আর এখন বলেন সালাহ উদ্দিন কোথায়? তা সালাহ উদ্দিন কোথায়, উনি কোথায় তাকে পাঠিয়েছেন, কোনো গভীর আন্ডারগ্রাউন্ডে পাঠিয়েছেন, ডিপ আন্ডারগ্রাউন্ডে পাঠিয়েছেন, তার জবাব কে দেবে? তার জবাব আমরা দেব কোত্থেকে?’

এরপর প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তাকে (সালাহ উদ্দিন আহমেদ) তো আমরা অ্যারেস্ট করার জন্য খুঁজে বেড়াচ্ছি, এটা তো সত্যি। পেলেই অ্যারেস্ট করব। কারণ তার বিরুদ্ধে মামলাও আছে। কিন্তু সে কোথায়? এর জবাব তো খালেদা জিয়া নিজে দিতে পারবে। কোথায় তাকে সরাল। তাকে দিতে হবে সে জবাব।’

সালাহ উদ্দিন আহমেদের নিখোঁজের ঘটনায় তার স্ত্রী হাসিনা আহমেদ রাজধানীর গুলশান ও উত্তরা পশ্চিম থানায় সাধারণ ডায়েরি করতে গেলেও পুলিশ নেয়নি। ১২ মার্চ তিনি হাইকোর্টে একটি আবেদন করেন। সালাহ উদ্দিন আহমেদকে কেন খুঁজে বের করা হবে না এবং আগামী রোববার (১৫ মার্চ) তাকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ কেন দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন বিচারপতি কামরুল ইসলাম ও বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুরের হাইকোর্ট বেঞ্চ। আদালতের ওই জবাব দেয়ার একদিন আগে শেখ হাসিনা আজ শনিবার সালাহ উদ্দিন আহমেদের ‘নিখোঁজ’ হওয়া নিয়ে বক্তব্য দিলেন। মেহেদী হাসান