কানাডায় আবারো হিজাব নিয়ে বিতর্ক

কানাডার হাউজ অব কমন্সে, আদালতে এবং ইমিগ্রশনে আবারো হিজাব-নেকাব নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন হারপার সংসদে বলছেন, যে সব নারী হিজাবে মুখমণ্ডল ঢেকে রাখেন, এটা ‘নারী বিরোধী সংস্কৃতি’। তার এই মন্তব্যের সমালোচনা করে লিবারেল পার্টির নেতা জাস্টিন ট্রুডো বলেন, কনজারভেটিভ পার্টি ইসলামোফিয়ায় আক্রান্ত তাই এই সরকার ভয় দেখানোর রাজনীতি করেছেন। যা কানাডার বহুজাতিক সংস্কৃতির পরিপন্থী।

তবু রক্ষণশীল হারপার সরকার নাগরকিত্বের শপথগ্রহণের সময় হিজাবে মুখ ঢেকে রাখার বিরুদ্ধে এক ধরনের লড়াই শুরু করেছে। বিষয়টি ইতিমধ্যে আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে।

উল্লেখ্য, জেসন কেনি অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রী থাকাকালে ২০১১ সালের শেষদিকে মুসলিম নারীদের নাগরিকত্বের শপথ গ্রহণের সময় নেকাব পরার নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলেন এবং টুইটারে তা আবারো তুলে ধরে লিখেছেন, নাগরিকত্বের শপথ গ্রহণকারীদেরকে মুখমণ্ডল অনাবৃত থাকতে হবে।

তার প্রতিবাদে টরন্টোস্থ মিসিসগার জুনেরা ইসহাক নামের এক পাকিস্তানি নারী ওই নিষেধাজ্ঞার কারণে সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করেন। তিনি যুক্তি দেন যে, তার ধর্মবিশ্বাসকে ধারণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় ওই নিষেধাজ্ঞা তার অধিকারের সনদ লঙ্ঘন করেছে। কিছু মুসলিম নারী জনসমক্ষে এবং অনাত্মীয় পুরুষের সামনে নেকাব পরিধান করেন।–ওয়েবসাইট।