মালয়েশিয়ায় ভূমিকম্পের জন্য দায়ী ‘ন্যুডিস্টরা’

শুক্রবার ভোরে ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে মালয়েশিয়ার বর্নিও দ্বীপের সাবাহ জেলা। দেশটির সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট কিনাবালুর একটি চূড়া ভেঙে পড়েছে।  মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার (ইউএসজিএস) তথ্যমতে, মালয়েশিয়ার ভূ-কম্পনের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৬। বর্নিও দ্বীপে উদ্ধারকাজে নিয়োজিত এক সরকারি কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত এই ভূমিকম্পে একজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ভূমিকম্পে ওই এলাকায় ১৬০ জন পর্বতারোহীর আটকা পড়েছেন।

এদিকে, মালয়েশিয়ার সাবাহ প্রদেশের বর্নিও দ্বীপে শক্তিশালী ভূমিকম্পের জন্য সেখানে ছবি তোলা ‘ন্যুডিস্টদের’ দোষারোপ করেছে স্থানীয় জনগণ। তাদের অভিযোগ, তারা নগ্ন হয়ে ছবি তুলে স্থানটির পবিত্রতা নষ্ট করেছে এবং এজন্যই ভুমিকম্প আঘাত হেনেছে। স্থানীয়দের মতে, পাহাড়ে নগ্ন হয়ে ছবি তোলায় ‘আকি’ (পাহাড় রক্ষাকারী) তাদের শাস্তি হিসেবে ভুমিকম্প ঘটিয়েছে।

সাবাহ প্রদেশের এক ওয়েব ডেভেলপার নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, রানাউ পাহারের পবিত্র স্থানে নগ্ন হয়ে মূত্রত্যাগের কারণে পাহাড়-আত্মারা অনেক অপমানিত বোধ করে এবং ভুমিকম্পের মাধ্যমে তাদের প্রতিশোধ নেয়। অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এই ন্যুডিস্টদের প্রতি ক্ষোভ ঝাড়ছেন। জুলফাহমিআব-সালাম টুইটারে জানান, কিনাবুলু পাহাড় হয়তো এসকল নগ্ন দর্শনার্থীদের উপর ক্ষোভ ঝেড়েছে।

৩০ মে কিনাবুলু পাহাড়ে পাঁচজন নগ্ন ব্যক্তির ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এরপরে ৪ জন নারীসহ ১০ জনের আরেকটি নগ্ন দলের ছবি পোস্ট করা হয়। তৎক্ষণাৎ সাবাহা’র নাগরিকরা এর বিরোধিতা করেন, কারণ তারা মনে করেন এই পাহাড়টি পবিত্র।

সাবাহ পার্কের পরিচালক দাতুক জামিলি নাইস বলেন, ৪ জন নারী এবং ৬ জন পুরুষের দলটি আলাদা হয়ে দক্ষিণ চূড়ার দিকে গেছে। তারা তাদের গাইডের কথা অমান্য করে এই কাজটি করেছে। এই ঘটনার পরে সেই গাইডকে একটি ‘কারণ-দর্শানো’ নোটিশ দেয়া হয়েছে। অন্যান্য গাইডদেরও এই ব্যাপারে কড়া নির্দেশ দেয়া হয়েছে যেন আর কেউ এমন কাজ করতে না পারে।